পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৬৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


উদ্বেগে &:)v5 ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণীর মনে হইল,--“ইনি বুঝি কোনও মহাপুরুষ ; নিভৃতে সাগরতীরে বসিয়া সাধনা করিতেছেন।” সন্ন্যাসী আবার হাসিলেন ; হাসিতে হাসিতে কহিলেন,— "কিরে!—তো এত রাত্রে কোথায় মরুতে চলেছিস ? হ। — হা—হা ! সব মাটি – সব মাটি ।” হৃষীকেশ ভাবিলেন,—‘ইনি কি আমাদের মনের কথা সব জানতে পেরেছেন ? প্রকাশ্বে কহিলেন,—“কাত্যায়নি । মর হ’ল না। ঐ দেখ !—জগবন্ধু আমাদের মরণে বাধা দিবার জন্য এই মহাপুরুষকে এখানে পাহার রেখেছেন।” কাত্যায়নীর মৰ্ম্মে মৰ্ম্মে সেই কথাটী প্রবেশ করিল। কাত্যায়নীর মনে হইল,—“দয়াময় আমাদিগকে মরিতে fদলেন না ।” ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণীকে নিরুত্তম দেখিয়া, সন্ন্যাসী পুনরায় হাসিয়া উঠিলেন। হা--স্থা করিয়া হাসিতে হাসিতে কহিলেন,— “মরা হ’ল না !” হৃষীকেশ চমকিয় উঠলেন। তিনি দুরে দাড়াইয়া অফুটস্বরে কাত্যায়নীকে যাহা বলিয়াছিলেন, মহাপুরুষ কেমন করিয়া তাহ জানিতে পরিলেন ? হৃষীকেশ আবেগভরে ছুটিয়া গিয়া বালুকারাশির মধ্যে উপবিষ্ট মহাপুরুষের চরণতলে নিপতিত হইলেন । তাহার সুরে মুর মিলাইয়া কহিলেন,— "সত্যই ঠাকুর | মর্য হ’ল না।” সন্ন্যাসী –“মরা হ’ল না ! কেন মতে এসেছিলে!” হৃষীকেশ।--“ঠাকুর । অন্তৰ্য্যামি ! আপনাকে অধিক আর কি বলিব ? আপনি তো সকলই জানিতেছেন।”