পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৬৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


や8 লক্ষণ-সেন সন্ন্যাসী।–“মরণে কি ফল আছে ? মাটির জন্য মিছে কেন মাটি হতে যাস ? যাহা গিয়াছে, মরিলে কি তাহ ফিরিয়৷ পাওয়া যায় ?” হৃষীকেশ —“আমাদের সংসারের অবলম্বন একমাত্র কন্যা। সেই কন্যাকে আজ জগবন্ধুর চরণে সমৰ্পণ করে এসেছি । তাই শোকে তাপে মুহমান।" সন্ন্যাসী !—“বা ! — বেশ করেছিস ! যণর সমগ্রী তাকে দিয়েছিস্ ! তার আর দুঃখ কি ?” কাত্যায়নী কাদিতে কঁদিতে কহিলেন,—“ঠাকুর | আমাদের যে একমাত্র কন্যা !" সন্ন্যাসী বাধা দিয়া কহিলেন,—“মাগে ! তুই তো ঘমের হাতে দিম্ব-নি ! তোর কন্যাকে তো দস্তুতে অপহরণ করে নাই ! তোর কন্যাকে তো ব্যাস্ত্রগ্রাসে সমর্পণ করিতে হয় নাই। তবে কেন তোরা এতটা উতল হয়েছিস ! আত্মহত্য মহাপাপ ! মা ! — দেশে ফিরে যা ।” ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণী উভয়েরই মনে হইল—“সত্যই তো! সন্ন্যাসী ঠাকুর যাহা বলিতেছেন, তাহার এক বর্ণও তো মিথ। নয় !” মনে পড়িল-পথের বিভীষিকাময় দৃশ্য-সমূহ! মনে পড়িল— গড়ের চটিতে দস্থ্য কর্তৃক বালিকার অপহরণ-বৃত্তান্ত ! মনে পড়িল—পথিমধ্যে ব্যাস্ত্র কর্তৃক বালকের প্রাণ-সংহার! মনে পড়িল—অন্যত্রে বিস্তুচিকায় বালিকার প্রাণত্যাগ ! ব্রাহ্মণব্রাহ্মণী তখন জগন্নাথের উদ্দেশে প্রণিপাত করিয়া কহিলেন,— "ঠাকুর! তুমি আমাদিগকে সে সকল বিপদে রক্ষা করিয়াছ, সেই যথেষ্ট । আমাদের পদ্মাবতীকে আমরা যে প্রাণে প্রাণে