প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (অষ্টম সম্ভার).djvu/১২৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শুভদা এস। কিন্তু অঘোরবাৰু কে ? পরে শুনে । অঘোরবাবুকে জিজ্ঞাসা ক’রো, তিনি কোথায় বিবাহ করেছেন ? স্বরেন্দ্রনাথ হাসিয়া ফেলিলেন—কোন পরিচয় আছে নাকি? বোধ হয় কতক আছে । SS জন্মিলে মরিতে হয়, আকাশে প্রস্তর নিক্ষেপ করিলে তাহাকে ভূমিতে পড়িতে হয়, খুন করিলে ফাসি যাইতে হয়, চুরি করিলে কারাগারে যাইতে হয়, তেমনি ভালবাসিলে কঁদিতে হয়—অপরাপরের মত ইহাও একটি জগতের নিয়ম। কিন্তু এ নিয়ম কে প্রচলিত করিল জানি না। ঈশ্বর ইচ্ছায় স্বতঃপ্রবৃত্ত হইয়া চক্ষে জল আপনি ফুটিয়া উঠে, কিংবা মামুষে সখ করিয়া কঁদে কিংবা দায়ে পড়িয়া কাদে, অথবা চিরপ্রসিদ্ধ মৌলিক আচার বলিয়াই তাহাদিগকে বাধ্য হইয়া কাদিতে হয়— তাহা যাহারা ভালবাসিয়াছেন এবং তাহার পরে কঁাদিয়াছেন তাহারাই বিশেষ বলিতে পারেন । আমরা অধম, এ স্বাদ কখন পাইলাম না, না হইলে ইচ্ছা ছিল ভালবাসিয়া একচেটি খুব কাদিয়া লইব, ভালবাসার ক্ৰন্দনট মিষ্ট বা কটু পরীক্ষা করিব। আবার ইহাতে বড় আশঙ্কার কথাও আছে, শুনতে পাই ইহাতে নাকি বুক-ফটা-ফাটি কাণ্ডও বাধিয়া উঠে, অমনি শিহরিয়া শত হস্ত পিছাইয়া দাড়াই— মনে ভাবি এ যুদ্ধ-বিগ্রহের মধ্যে সহসা গিয়া পড়িব না। অদৃষ্ট ভাল নয়—কি জানি যদি পরীক্ষা করিতে গিয়া শেষে নিজের বুকখানাই ফাটাইয়া লইয়া বাট ফিরিয়া আসিতে হয় ; এ-ইচ্ছার আমি ঐখানেই ইস্তফা দিয়াছি। তবে কৌতুহল আছে ; যেখানে কেহ ভালবাসিয়া কাদে, আমি উকিবা কি মারিয়া তাহ দেখিতে থাকি ; বিবর্ণ, শঙ্কিত-মুখে ভয়ে ভয়ে অপেক্ষা করিয়া বসিয়া থাকি, বুঝি এইবার বা ইহার বুকখানা ফাটিয়া যাইবে দেখিতে পাইব, কিন্তু সে যখন অবশেষে চোখের জল মুছিয়া প্রশান্তভাবে উঠিয়া বসে তখন দুঃখিত হইয়া ফিরিয়া যাই । তবে এমন ইচ্ছা করি না যে, তাদের বুকখানা ফাটিয়া যাক, কিন্তু দেখিবার ইচ্ছাও কি জানি কেন এ পোড়া মন হইতে একেবারে ফেলিয়া দিতে পারি না । আজও সেইজন্য মালতীর এখানে আসিয়াছি। যাহা দেখিয়াছি তাহ পরে বলিতেছি, কিন্তু যাহা শিখিয়াছি তাহা এই যে, মানুষ ভালবাসিয়া ঈশ্বরের সন্মুখীন হইয়া দাড়ায়, মালতীর মত ভালবাসার এ অশ্র-বিসর্জন ভগবান-পদপ্রান্তে পদ্মের মত ফুটিয়া উঠে । আপনাকে জুলিয়া যোগ্য > \9 هو اسم لايا