প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (অষ্টম সম্ভার).djvu/২৩৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ হারামজাদা বুড়ো ঘোষালকে--লে বলবে, তার জপ-তপের তেজে ; জিজ্ঞেস কর গে আর এক জোচ্চোরকে—সে বলবে, পূৰ্ব্বজন্মের পাপে- উ-এই দেশের ব্রাহ্মণ । বৃন্দাবন ধীরভাবে বলিল, কেশব, গোখরো সাপের খোলসকে লাঠির আঘাত করে লাভ নেই, পচা ঘোলের ছৰ্গদ্ধের অপবাদ ছুধের ওপর আরোপ করাও ভুল। অজ্ঞান ব্রাহ্মণকেও কোথায় ঠেলে নিয়ে গেছে, তাই বরং অ্যাখে । কেশব সেইসব কথা স্মরণ করিয়া ক্রোধে ক্ষোভে অস্তরে পুড়িয়া যাইতেছিল, যা মুখে আসিল বলিল, তবে এতবড় দও কেন ? বৃন্দাবন কহিল, দণ্ড ত নয়। সেই কথাই তোমাকে বলছিলুম কেশব, যখন কোন পাপের কথাই মনে পড়ে না, তখন এ আমার পাপের শাস্তি স্বীকার করে, নিজেকে ছোট করে দেখতে আমি চাইনে । এ-জীবনের স্মরণ হয় না, গত জীবনের ঘাড়েও নিরর্থক অপরাধ চাপিয়ে দিলে আত্মার অপমান করা হয় । সুতরাং আমার এ পাপের ফল নয়, অপরাধের শান্তি নয়—এ আমার গুরুগৃহ-বাসের গৌরবের ক্লেশ। কোন বড় জিনিসই বিনা দুঃখে মেলে না কেশব, আজ আমার চরণের মৃত্যুতে যে শিক্ষা লাভ হ’ল, তত বড় শিক্ষা, পুত্র-শোকের মত মহৎ দুঃখ ছাড়া কিছুতেই মেলে না । বুক চিরে দেখাবার হলে তোমাকে দেখতাম, আজ পৃথিবীর যেখানে যত ছেলে আছে, তাদের সবাইকে আমার চরণ তার নিজের জায়গাটি ছেড়ে দিয়ে গেছে। তুমি ব্রাহ্মণ, আজ আমাকে শুধু এই আশীৰ্ব্বাদ কর, আজ যা পেয়েছি, তাকে যেন না হারিয়ে ফেলে সব নষ্ট করে বসি । বৃন্দাবনের কণ্ঠ রুদ্ধ হইয় গেল, দুই বন্ধু মুখোমুখি দাড়াইয়া বর বর কবিয়া কাদিয়া ফেলিল । 職 獵 響 犧 সেদিন বৃন্দাবন একটিমাত্র কুপ প্রস্তুত করাইবার সঙ্কল্প করিয়াছিল, কিন্তু দেখা গেল একটিই যথেষ্ট নহে। গ্রামের পূর্বদিকেই অধিকাংশ দুঃখী লোকের বাস ; এ-পাড়ায় আর একটা বড়-রকমের কুপ প্রস্তুত না করিলে জলকষ্ট এবং ব্যাধি-পীড়া নিবারিত হইবে না। তাই কেশব ফারমের সাহেবের সঙ্গে সাক্ষাৎ করিয়া সংবাদ লইয়া আসিল যে যথেষ্ট অর্থ ব্যয় করিলে এমন কুপ নিৰ্মাণ করা যাইতে পারে, যাহাতে শুধু একটা গ্রামের নয়, পাঁচ-সাতটা গ্রামেরও দুঃখ দূর করা যাইতে পারে ; উপরন্তু, অসময়ে যথেষ্ট পরিমাণে চাষ-আবাদের সাহায্য চলিতে পারিবে । বৃন্দাবন খুনী হইয়া সম্মত হইল এবং সেই উদ্দেশুে শ্রাদ্ধের দিন, দেবোত্তর সম্পত্তি ব্যতীত সমুদয় সম্পত্তি রেজেস্ট্রী করিয়া কেশবের হাতে তুলিয়া দিয়া বলিল, কেশব, এই ক'রে ভাই, বিষাক্ত জল খেয়ে আমার চরণের বন্ধু-বান্ধবেরা যেন আর নামরে। আর আমার সকল সম্পত্তির বড় সম্পত্তি এই পাঠশালা । এর ভারও যখন নিলে, ३३*