প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (অষ্টম সম্ভার).djvu/২৮৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


*ब्र६-जांश्छिा-अरdiझे গুণেন্দ্রর চমক ভাঙিয়া গেল। তাড়াতাড়ি বলিয়া উঠিল, করেছি বৈ কি ! কৈ করলে ? মনে মনে করেছি । হেম হাসি চাপিয়া বলিল, কি আশীৰ্ব্বাদ করলে আমাকে বল । গুণেন্দ্র বিপদগ্ৰস্ত হইয়া অবশেসে গম্ভীর হইয়া বলিল, আশীৰ্ব্বাদ করে বলতে নেই। তা হলে ফলে না । হেম বলিল, আচ্ছা সে হবে, তুমি মাকে প্রণাম করেচ ? লে তো রোজ করি । হেম ব্যস্ত হইয়া বলিল, না, না, সে হবে না। আজ বিজয়া, আজ বিশেষ করে প্রণাম করতে হয়। শীগগির যাও—না হলে তিনি দুঃখ করবেন। গুণেন্ত্র নীচে নামিয়া গেল। কাৰ্ত্তিক মাসের মাঝামাঝি একদিন হেম ঝড়ের মত ঘরে ঢুকিয়াই বলিল, তোমাদের কি আর কথা নেই, আর কাজ নেই ? তোমাদের কি করেছি আমি ! বলিয়াই সে কাদিয়া ফেলিল । গুণেন্দ্র হতবুদ্ধি হইয়া বলিল, কি হয়েছে হেম ? হেম কাদিতে কঁাদিতে বলিল, যেন কিছু জানে না ! কি হয়েছে হেম ! মা বলছিলেন, শাস্তিপুরে, না কোথায়, সমস্ত ঠিক হয়ে গেছে । আমি যদি বিয়ে না করি, তোমরা কি জোর করে আমার হাত-পা বেঁধে দিতে পার ? গুণেন্দ্র এবার বুঝিতে পারিয়া হাসিয়া বলিল, ও এই কথা ! বড় হয়েছে। তোমার বিয়ে দিতে হবে না ? না ! না কি ? বিয়ে না দিলে জাত যাবে যে ! বিয়ে না দিলে তোমাদের জাত যায় কি ? গুণেন্দ্ৰ কহিল, আমাদের যায় না—আমরা ব্রাহ্ম। কিন্তু তোমাদের যখন সময়ে না দিলে জাত যায়, তখন দিতে হবে । হেম চোখ মুছিয়া বলিল, তোমরা ঠিক। তোমরাই মানুষ, তাই মানুষকে এমন ধরে-বেঁধে বধ কর না। আমি কিছুতেই এ-বাড়ি ছেড়ে যাব না—তা তোমরা ৰত মতলবই কর না ? গুণেন্দ্র তাকে শাস্ত করিবার অভিপ্রায়ে মিঞ্চকণ্ঠে কহিল, সেও খুব বড় ቖፃፀ