প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (একাদশ সম্ভার).djvu/১০৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छाब्रङ्गशैम ছট্‌ফট্‌ করিতে লাগিল। তাহাকে স্বামী ও শ্বাশুড়ী দু’জনে মিলিয়া বুঝাইয়াছিল, উণীনের মত লোক নাই । সে আসিয়া পড়িলে আর কোনো দুঃখ থাকিবে না। কেন সে বিশ্বাস করিয়াছিল! কেন সে নিজের হাতে চিঠি লিখিয়াছিল! অন্ধকার সঁ্যাতসেঁতে প্রাঙ্গণের একধারে দাড়াইয়। এই ক্ৰোধোন্মত্তা নারী ইহাদিগকে মিথ্যাবাদী, কুচক্রী, শয়তান, শয়তানী- প্রভৃতি কত কি বলিয়াও তৃপ্তি লাভ করিতে পারিল না। ক্রোধ ও হিংসা তাহার হৃদয়ে যে আক্ষেপ তুলিয়াছে তাহার কণামাত্র প্রকাশ করিবার ভাষাও তাহার মনে পড়িল না। তখন সে কায়মনে প্রার্থনা করিতে লাগিল, যেন ওই অৰ্দ্ধমৃত মানুষটির রাত্রি আর না পোহায় । দিন-দুই পরে সকালে কিরণ রান্নাঘরে বসিয়া তরকারি কুটিতেছিল, কি আসিয়া সংবাদ দিল, ডাক্তারবাৰু এসেচেন । কিরণ বঁট হইতে মুখ না তুলিয়া বলিল, মা আজ ভাল আছেন। তাকে বল গে। ঝি কিছু আশ্চৰ্য্য হইয়া গেল। কিছুক্ষণ চাহিয়া থাকিয়া বলিল, তিনি সেই ও-ঘরেই বসে আছেন । - তাহার কথার বিশেষ অর্থটার দিকে কিরণ লেশমাত্র মনোযোগ না দিয়া সহজ ভাবে কহিল, ওর ওষুধ কেউ ত খায় না, তবু কেন যে ও আসে জানিনে । তুই নিজের কাজে যা, ও আপনিই চলে যাবে। এই ডাক্তারটির ঔষধ যে ব্যবহারে আসে না, ঝির নিকট ইহা নূতন সংবাদ নহে । সুতরাং উল্লেখের আবশ্বকতা ছিল না । কিন্তু কেন যে সে আসে, এ প্রশ্ন সম্পূর্ণ নূতন । সে বিস্ময়াপন্ন হইয়া ভাবিতে লাগিল, কাল সন্ধ্যার সময় সে ঘরে গিয়াছে, ইহার মধ্যে হঠাৎ কি এমন ঘটিল যে ডাক্তারের এ-বাটতে আসা অনাবগুক হইয়া উঠিল। তথাপি সাহস করিয়া আর একবার বলিল, না হয় তরকারি আমি কুটে দিচ্চি, তুমি একবার যাও না। কিরণময়ী সহসা অত্যন্ত রুক্ষভাবে বলিয়া উঠিল, তুই যা যা। নিজের কিছু কাজ-কৰ্ম্ম থাকে ত কর গে। এই আকস্মিক ও অত্যন্ত অনাবগুক উগ্রতায় ঝি এতটুকু হইয়া গেল। এবাড়িতে সে খুব পুরাতন না হইলেও একেবারে নূতন নয়। ইতিপূৰ্ব্বে এরূপ অকারণ তীব্রতার পরিচয় পাইয়াছে, কিন্তু ঠিক এমনধারাটি সে স্মরণ করিতে পারিল না । , আর কোন সময়ে সেও বোধ করি রাগ করিত, কিন্তু আজ করিল না, অতি-বিশ্বরে সে অভিভূত হইয়া পড়িয়াছিল। তাই খানিকক্ষণ চুপ করিয়া থাকিয় সে ধীরে ধীরে ও-ঘরের স্বারের কাছে আসিয়া ডাক্তারকে বলিল, তিনি কাজে ব্যস্ত আছেন, ७शन यांश्रृंनि धांe । n - 霹守 جاج سيدج دو