প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (একাদশ সম্ভার).djvu/১০৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ ভাক্তার পায়ের কাছে ব্যাগটা রাখিয়া সেই ভক্তপোষের উপরেই উদ্বিগ্ন-মুখে বসিয়াছিল, কহিল, ব্যস্ত আছে কি গো ! কাজ আমারো ত আছে ! ঝি বলিল, তবে যাও না বাৰু। ডাক্তার জবা হইয়া গেল ; কহিল, একবার বল গে, আমার একটু বিশেষ कांछ श्रां८छ् । ঝি বলিল, আপনি বোঝ না কেন ডাক্তারবাৰু! আমি খুব বলেচি—আর বলতে পারব না। ও-সব আমি কিছু জানিনে, আজ আপনি যাও, বলিয়া সে চলিয়া গেল । এই অবহেলা ও লাঞ্ছনা প্রথমটা ডাক্তারকে গভীর আঘাত করিল, কিন্তু পরক্ষণেই একটা লজ্জাকর দুর্ঘটনার সম্ভাবনা তাহার মনে উদয় হইবামাত্র সে ভিতরকার ব্যাপারটা শুনিবার জন্য ব্যাকুল হইয়া উঠিল । তাহার অপেক্ষা করিয়া থাকিতে আপত্তি ছিল না এবং অপেক্ষা করিয়াই রহিল, কিন্তু কেহই ফিরিয়া আসিল না। তখন দাড়াইয়া কত কি ভাবিয়া চলিয়া যাইবে মনে করিয়া হাতব্যাগটা তুলিয়া লইয়া মুখ তুলিয়াই দেখিল, স্বারের স্বমুখে কিরণময়ী। ডাক্তার উষ্ঠত অভিমান দমন করিয়া বলিল, একটু সরো, বড় দেরি হয়ে গেল, আরো অনেক রূগী পথ চেয়ে বসে আছে —ম ভাল আছেন আজ ? ভাল আছেন, বলিয়া কিরণময়ী পথ ছাড়িয়া একপাশে সরিয়া দাড়াইল । ডাক্তারের কিন্তু পা উঠিল না। অথচ যাওয়ার প্রস্তাব নিজে করিয়া দাড়াইয়া থাকাও শক্ত হইয়া পড়িল । কিরণময়ী মৃদু মৃদ্ধ হাসিতে লাগিল । বলিল, যাও না । ডাক্তার মুখ তুলিয়া ভ্ৰ কুঞ্চিত করিল ; কহিল, তুমি কি মনে কর আমি যেতে জানিনে ? আমি কি পাগল যে মনে করব তুমি যেতে জান না ? হ্যা ডাক্তার, কতগুলি রুগী তোমার পথ চেয়ে আছে শুনি ? বলিয়াই মুখ ফিরাইয়া হাসিতে লাগিল। কুপিত ডাক্তারের প্রথমে ইচ্ছা করিল ঐ মুখ চড় মারিয়া বন্ধ করিয়া দেয়, কিন্তু সেটা ত সম্ভব নহে, শুধু বলিল, যাও তুমি। আমি যাব কোথায় ? বাড়ি জামার, যেতে হলে তোমাকেই হয়। আমি যাচ্ছি, বলিয়া সে গমনোন্তত হইতেই কিরণময়ী দুই চৌকাঠে হাত দিয়া পখরোধ করিয়া বলিল, যাচ্চো, কিন্তু জেনে যাও, এই যাওয়াই শেষ যাওয়া । তাহার কণ্ঠস্বর ও মুখের বিস্ময়কর পরিবর্তনে ডাক্তার শক্ষিত হইল। কিন্তু মুখে বলিল, বেশ তাই, এই শেষ যাওয়া । কিরণময়ী বলিল, সত্যিই শেষ যাওয়া। যখন এসে পড়েছ তখন স্পষ্ট করেই too.