প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (একাদশ সম্ভার).djvu/১৮১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চরিত্রহীন रूषा उनिब्रा किब्रभवशेौ ककिउ श्ब्रा छर्द्विज ।। ७वांद्र ठाशन्नई भूष किञ्च कषा ফুটিল না। অকস্মাৎ আনন্দের বন্যায় তাহার দুই কূল যেন ভাসাইয়া দিবার আয়োজন করিয়া তুলিল। তাই সে ক্ষণকালের জন্য অন্যত্র মুখ ফিরাইয় আপনাকে সংবরণ করিয়া লইতে লাগিল। এইটুকু আত্মীয় সম্বোধন ! তা কতটুকুই বা ! কিন্তু ইহারই জন্য সে যেন কত যুগ হইতে তৃষ্ণাৰ্ত্ত হইয়াছিল, তাহার এমনি মনে হুইল । সতীশ এই বলিয়া ভাকিয়াছে, দিবাকর তাহাই বলিয়া ডাকে, কিন্তু তাছাতে ইহাতে কি অপরিমেয় ব্যবধান ! এই জাহানটুকুর দ্বারা এতদিন পরে উপেন্দ্র যে তাহাকে কাছে আকর্ষণ করিল, হঠাৎ তাহার আশঙ্কা হইল, ইহার প্রচণ্ড বেগ সে বুঝি বা সহ করিতেই পারিবে না। কিন্তু, ইহাদের এই আকস্মিক মৌনতায় অঘোরময়ী মনে মনে শঙ্কিত হইয়া উঠিলেন। একজন যদি বা রাজি হইল, আর একজন মুখ ফিরাইয়া রহিল। তিনি আর থাকিতে পারিলেন না, কহিলেন, বাবা উপীন, তা হলে আমার যাবার ত কোন বিশ্নই নেই। কিন্তু সে ত স্থার দেরি নেই, আমি কেন এখনি গিয়ে মল্পিক-গিল্পীকে বলে আসিনে ? - - উপেন্দ্র কিরণময়ীর প্রতি আর একবার দৃষ্টিপাত করিয়া কহিল, আমি ত বলেচি মাঙ্গীমা, আমার তাতে কোন আপত্তি নেই। তোমার বৌমা সম্মত হলেই হ’লো। র্তারও যখন মত আছে, তখন তোমার তীর্থযাত্রার কোন বাধাই ভ জামি দেখিনে । তবে যাই বাবা, আমি এখনি গিয়ে তাকে বলে আসি । জেনেও জাসি, কবে উাদের যাওয়া হৰে ; বলিয়া অঘোরময়ী কালবিলঙ্গ না করিয়া বিকে ডাকিয়া লইয়া প্রফুল্লমুখে নীচে নামিয়া গেলেন। র্তাহার এই ত্বরাটুকুতে উপেন্দ্র মনে মনে তৃপ্তি বোধ করিয়া কহিল, ভালই হ'লে । যেমন করে হোক, এখন দিন-কতক ওঁর বাইরে যাওয়া নিতান্ত আবশ্যক । কিরণময়ী কিছু বলিল না। এইটুকুর মধ্যে সে কেমন যেন একটু বিমনা হইয়া পড়িয়াছিল। জবাব না পাইয়া উপেন্দ্র পুনরায় কহিল, আপনার যথার্থ সম্মতি আছে ত বৌঠান ? উপেন্দ্রের কণ্ঠস্বরে সে ক্ষণকাল জবোধের মত তাহার মুখপানে চাহিয়া থাকিয়া সহসা যেন সচেতন হইয়া উঠিল। কহিল, আছে বই কি ঠাকুরপো, নিশ্চয় আছে। এ ষে কি অন্ধকূপ সে শুধু আমরাই জানি। যান ধান দিন-কতক এই দুঃখের গওঁী থেকে অব্যাহতি পেয়ে বঁচুেন। তাহার কথাগুলি এমন করিয়াই তাহার মুখ দিয়া বাহির হইয়া আসিল যে, উপেজ 3 ox