প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (একাদশ সম্ভার).djvu/২৮১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छब्रिएबहौन জগৎতারিণী তখন রাগ করিয়া হুকুম করিলেন, তবে তুমিষ্ট যাও বাপু, ভাল মাছ-টাছ কোথায় পাওয়া যায় শীগগির নিয়ে এসে। আজ সকাল হইতেই যেজন্ত র্তাহার মন বিগড়াইয়া গিয়াছিল, তাহার হেতু ছিল । সতীশকে নিমন্ত্ৰণ করিতে পাঠাইবার পরে তিনি খবর পাইয়াছেন কাল রাত্রে नश्नां **ांकरभांश्न नूनद्यांच्च श्रांजिब्रां शछिद्र श्यां८छ्न । ७३ ८णांकüारक डे९कल्ले সাহেৰী আনার জন্ত তিনি কোনদিন দেখিতে পারিতেন না, এবং বিশেষ করিয়া যখন হষ্টতে শুনিয়াছিলেন সে সরোজিনীর পাণিপ্রার্থী, তখন হইতে লোকটি র্তাহার দ্ব চক্ষের বিষ হইয়া গিয়াছিল। দিন-কুড়ি পূৰ্ব্বে যখন সে উপলক্ষ স্বষ্টি করিয়া কলিকাতা হষ্টতে এখানে আসিয়াছিল, তখন জগং তারিণী তাহাকে একপ্রকার স্পষ্ট করিয়া বলিয়াছিলেন যে, তাহার কম্ভার সহিত বিবাহ অসম্ভব। তবুও বেহায় লোকটা বলা নাই, কহা নাই, আবার আসিয়া উপস্থিত হইয়াছে শুনিয়াই তাহার চিত্ত সংশয়ে কণ্টকিত হইয়া উঠিয়াছিল। তা ছাড়া, এ সংবাদ একটুখানি পূৰ্ব্বাষ্ট্রে জানিতে পারিলে আজ সতীশকে হয়ত তিনি নিমন্ত্রণ করতেই পাঠাইতেন না । কেন এ-খবর যথাসময়ে তাহাকে জানান হয় নাই, বলিয়া তিনি জ্যোতিষ হইতে বাড়ির বেহারাটা পৰ্য্যন্ত সকলের উপরেই চটিয়া গিয়াছিলেন। সরোজিনী বাহিরের বসিবার ঘর হইতে বাহির হইয়া কোনমতে মায়ের চোখ এড়াইয়া উপরে যাইতেছিল —শশাঙ্কমোহনের আগমন সেও জানিত না। কিন্তু জগৎতারিণী ফিরিয়া দাড়াইয়া তাহার আপাদমস্তক ক্ষণকাল নিঃশব্দে নিরীক্ষণ করিয়া গুঢ় ক্রোধের স্বরে বলিলেন, বেড়ানো হ’লো ত ? এখন জুতা-মোজাট একদণ্ড ছাড় বাছা ! সতীশ আজ এখানে খাবে, আমি নিজে না রাধলে ত তোমাদের এই খ্ৰীষ্টানের বাড়িতে যে জলস্পর্শ করবে না। যাও ঘাঘ র-টাগরা ছেড়ে আমার রান্নাঘরে এসো গে। বুড়ো মায়ের একটুখানি সাহায্য করলে তোমাদের যীশুখ্ৰীষ্ট রাগ করবেন না বাছ, যাও। মা রাগিলে যে কিরূপ অগ্নিমূৰ্ত্তি হইতেন এবং সত্য-মিথ্যা নির্বিচারে লঙ্ঘন করিয়া যা মুখে আসে বলিতেন, তাহ কাহারও অবদিত ছিল না । সরোজিনী কুষ্ঠিত হইয়া কহিল, আমি এখুনি আলচি মা। কিন্তু মায়ের রাগ তাহাতে কিছুমাত্র শান্ত হইল না ; বলিলেন, 'এসেই বা আমার কি মাথা কিনবে মা ? সতের-আঠার বছরের মেয়ে হলে, আজও এক মুঠা চাল সিদ্ধ করতে শিখলে না। আমরাও গরীবের ঘরের মেয়ে ছিলুম না মা, কিন্তু ও-বয়সে সংসার চালিয়ে এসেচি। বামুনমেয়ে আজ যদি চলে যায়, আমাকে তা হলে খাবার অভাবে শুকিয়ে মরতে হবে। যে ঘর-সংসারে ধৰ্ম্ম-কৰ্ম্ম নেই, সে-দ্বরে ছেলে-মেয়ে পেটে ধরা বৃথা। এই কঠোর মন্তব্য অত্যন্ত কঠিন করিয়া ব্যক্ত করিয়া ፳ፃ »