প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (একাদশ সম্ভার).djvu/২৯৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छछेिज़शेन করে আপনারা মন খারাপ করবেন না। আমি কখনো কোন ছলে আয় আপনাদের স্বমুখে আসব না—আমাকে আপনার ভূলে যাবেন । বলিয়া ধীরে ধীরে বাহির হইয়া গেল । -> জ্যোতিষ পার্থে চাহিয়া সভয়ে দেখিল, সরোজিনীয় মাথাটা একেবারে তাঙ্গর জাক্ষর কাছে ঝুঁকিয়া পড়িয়াছে –ওরে, ও সরো, বলিয়া চীৎকার করিয়া উঠিতে না উঠিতে সরোজিনীর শিখিল মৃষ্টি চেয়ারের হাতল হইতে স্বলিত হইয়। সে নীচে কাপেটের উপর মূৰ্ছিত হইয়া পড়িয়া গেল! অভিমান ও অপমানের ক্রোধে জ্যোতিবের বুদ্ধি এমনি আচ্ছন্ন হইয়া গিয়াছিল যে, সতীশের বিদায়-পালটা সরোজিনীর সাক্ষাতে ঘটিলে যে আঘাতটা তাহার কি কঠিন বাজিবে এ হিসাবই তাছার মনে ছিল না । তাষ্ট, অনেক শুশ্রষার পর সরোজিনীর চৈতন্য ফিরিয়া আসিলে সে যখন কাদিতে কাদিতে টলিতে টলিতে ঘর ছাড়িয়া চলিয়া গেল, তখন জ্যোতিধের মাথায় একেবারে বাজ ভাঙ্গিয়া পড়িল । - ভগিনীকে শুধু যে সে প্রাণাধিক ভালবাসিত তাঁহাই নয়, ভাহার সর্ব-রুপলাৰণাবতী শিক্ষিত। ভগিনীর দৃপ আত্মমর্থ্যাদাঙ্গনের উপরেও তাহার অগাধ বিশ্বাস ছিল । কি স্ব ভিতরে ভিতরে লে যে এত ভাল ও লাসিতে পারে যে, এ-সব কিছুই কোনো কাজে লাগিবে না, সমস্ত জানিয়াও সে একটা চরিত্রহীন লম্পটের পরম অন্যায়ের পদতলে সমস্ত বিসর্জন দিয়া চেতন হারাইয়া শুষ্ক তৃণখণ্ডের মত লুটাইরা পড়িবে, এ আশঙ্কা সে কল্পনাও করে নাই । তাহার মুখের উপর বেদনার যে-ছবি ফুটিয়া উঠিতে সে এইমাত্র স্বচক্ষে দেখিল, সে যে কত বড়, তাহা নিরূপণ করিবার শক্তি এবং অভিজ্ঞতা তাহার ছিল না, তথাপি সে বন্ধক্ষণ পৰ্য্যন্ত অসাড়ের মত বলিয়। থাকিয় শশাঙ্কমোহনের প্রতি চাহিয়া কহিল, আপনি বোধ হয় আজ রাত্রের ট্রেনেই কলকাতায় ফিরবেন ? শশাঙ্ক বলিল, না, তেমন কিছু জরুরি কাজ নেই সেখানে । জ্যোতিষ আর কোন প্রশ্ন না করিয়া উঠিয়া ভিতরে চলিয়া গেল এবং নিজের ঘরে গিয়া দোর দিয়া শুইয়া পড়িল । সে রাত্রে ডিনারটা শশাঙ্কমোহনকে একাই সমাধা করিতে হইল, কারণ, জ্যোতিষের একেবারেই সাড়া পাওয়া গেল না। জগৎতারিণী একটি একটি করিয়া ছেলের মুখে সমস্ত শুনিয়া গভীর দীর্ঘশ্বাস ত্যাগ করিয়া অনেকক্ষণ স্তন্ধ হইয়া রছিলেন, তারপরে বললেন, এ সব আমারই পোড়া কপালের ফল, জ্যোতিষ। পরলোকগত স্বামীকে স্মরণ করিয়া কহিলেন, নিজে ভ সার-জীবন এই নিয়ে জলে-পুড়ে ময়লুম, বাকীটুকু ছেলে-মেয়েদের জন্তেই যদি না ২৮৯ רכי-tיל ל