প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (একাদশ সম্ভার).djvu/৩১৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छब्रिजशैन বেহাৰী প্রভূর মুখের পানে চাহিল, কিন্তু প্ৰভু নিরুত্তরে চোখ বুজিয়া চুপ করিয়া শুইয়া পড়িলেন । বাহির হইতে পুনরায় শৰ জাগিল—দোর খুলে দাও না, হাত পুড়ে গেল যে ! বেহারী উঠিয়া কবাট খুলিয়া নীরবে পাশ কাটাইয়া সরিয়া পড়িল । 80 এক বাটি গরম দুধ হাতে সাবিত্রী ঘরে ঢুকিয়া তাড়াতাড়ি সেটা পাশের টিপয়ের উপর নামাইয়। রাখিল । তাহার পরনে ধপধপে গরদের শাড়ি, সপ্তস্নাত স্বদীর্ঘ সিক্ত কেশভার পিঠ ছাড়াইয়া নীচে ঝুলিয়া পড়িয়াছে, কয়েকটা চূর্ণকুন্তল মুখের উপর কপালেব উপর আসিয়া পড়িয়াছে, সতীশ আড়-চোখে চাহিয়া দেখিল। তাছার হঠাৎ মনে হইল, সাবিত্রীকে আজ যেন সে এই প্রথম দেখিল । কিন্তু সে লতীশের জার্ক্স চক্ষু-পল্পৰ এই ক্ষীণ দীপালোকে দেখিতে পাইল না। একটুখানি লরিয়৷ কাছে আসিয়৷ মুখ টিপিয়া হাসিয়া বলিল, দোর দিয়ে বলে প্রস্তু-তৃত্যে কি পরামর্শ হচ্ছিল শুনি বেহায় আপনঁটাকে কি করে ফটকের বাইরে দূর করে দেওয়া যায়, এই লা ? - - সতীশ সাড়া দিল না। পাছে কথা কহিলে কণ্ঠস্বরে ভিতরের দুৰ্ব্বলতা ধরা পড়ে, এই ভয়ে চুপ করিয়া রহিল। সাবিত্ৰী বলিল, ছেলেবেলায় সেই বেড়ালের গলায় ঘণ্টা বাধায় গল্প পড়েচ ত ? আমিও দেখতে চাই এ-ক্ষেত্রে ঘণ্টা বঁধতে কে এগিয়ে আসে। তুমি নিজে, না তোমার ও সাধুজীটি! তবুও সতীশ কথা বলিল না, যেমন চুপ করিয়া ছিল তেমনি রছিল। একটা চৌকি টানিয়া লইয়া সাবিত্ৰী কাছে বসিল । কিন্তু এবার তাহার পরিহাসতরল কণ্ঠস্বর গম্ভীর হইল। বলিল, তামাসা থাক, কাওটা কি আমাকে বুঝিয়ে দিতে পার । উপীনদার সঙ্গে ঝগড়া করলে, শেষে কি না সরোজিনীর সঙ্গে পৰ্য্যন্ত ঝগড়া করে চলে এলে ! তা না হয় একদিন মিটে যাবে জানি, কিন্তু এ কি হচ্ছে ? আমার গ ছয়ে দিব্যি করেছিলে মদ ছোবে না, তা মদ চুলোয় থাক, গাজা খেতে ধরেচ। তাও জাবার সোজা করে নয়,-যত সমস্ত অভাগার দল জুটিয়ে, গেরুয়া কাপড় পরে মন্ত্ৰ-মন্ত্রের চাক পিটে প্রকাণ্ডে বুক ফুলয়ে খাওয়া চলছে । Voe on