প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (ত্রয়োদশ সম্ভার).djvu/১৬৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ পাইল ওদিকের খোলা জানালার ধারে ইঞ্জিচেয়ারে কে একজন গুইয়া আছে। সে মুখ তুলিয়া চাহিতেই ভারতী চিনিতে পারিয়া উল্লাসে কলরব করিয়া উঠিল, ডাক্তারবাৰু, কখন এলেন আপনি ? স্বমিত্রাদিদির সঙ্গে দেখা হয়েচে ? न1 ।। অপূৰ্ব্ব কহিল, ভয়ানক কাও হয়ে গেছে ডাক্তারবাবু, আমাদের একাউন্টেন্ট রামদাস তলওয়ারকরকে পুলিশে ধরে নিয়ে গেছে। ভারতী বলিল, ইনসিনে তার বাসা । সেখানে স্ত্রী আছে, মেয়ে আছে, তারা এখনও কিছুই জানেন না । অপূর্ব বলিল, অত দূরে এই অন্ধকার রাতে—কি ভয়ানক বিপদই ঘটলো ডাক্তারবাৰু ! ডাক্তার হাই তুলিয়া সোজা হইয়া বসিয়া হাসিলেন, ভারতীকে কহিলেন, আমি বড় শ্রান্ত, আমাকে একটু চা তৈরী করে খাওয়াতে পারো ভাই ? ভারতী বলিল, পারি, কিন্তু আমাদের যে এখুনি বেরোতে হবে ডাক্তারবাবু। কোথায় ? ইনসিনে । তলওয়ারকত্ববাবুর বাসায় । কোন প্রয়োজন নেই । অপূৰ্ব্ব সবিস্ময়ে তাহার মুখের প্রতি চাহিয়া বলিল, প্রয়োজন নেই কি রকম ডাক্তারবাৰু? তার বিপন্ন পরিবারের ব্যবস্থা করা, অন্ততঃ একটা খোজ-খবর নেওয়া ত প্রয়োজন বলেই মনে হয় । ডাক্তার হাসিয়া বলিলেন, তাতে আর সন্দেহ নেই। কিন্তু সে ভার আমার ; আপনার বড় জোর এই অন্ধকারে সারারাত্রি ধরে ইনপিনের বন-জঙ্গলে ঘুরে বেড়াতে পারবেন,—শেষ পর্য্যন্ত হয়ত বাড়িটাও চিনে বার করতে পারবে না । এই বলিয়া তিনি পুনরায় হাস্ত করিয়া কহিলেন, তার চেয়ে বরঞ্চ আপনি বন্ধন, এবং ভারতী চা তৈরী করে আমুক। কিন্তু আপনার বুঝি চলে না ? তা বেশ, হোটেলের বামুনঠাকুর পবিত্রভাবে কিছু খাবার তৈরী করে দিয়ে যাক, আহারাদি করে বিশ্রাম করুন । ভারতী নিশ্চিন্ত ও প্রফুল্লচিত্তে চা তৈরী করিতে উপরে যাইতেছিল, কিন্তু অপূৰ্ব্ব কিছুই বিশ্বাস করিল না। ডাক্তারের সমস্ত কথা-বাৰ্ত্তাই তাহার কাছে হেঁয়ালির মত ঠেকিয়া অতিশয় খারাপ বোধ হইল। ভারতীকে উদ্দেশ করিয়া ক্ষুন্নকণ্ঠে বলিল, এই রাত্রে কষ্ট করা থেকে তুমি বেঁচে গেলে, কিন্তু আমার দায়িত্ব ঢের বেশি। যত রাত্রিই হোক আমাকে সেখানে যেতেই হবে। } & to