প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (ত্রয়োদশ সম্ভার).djvu/২০৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ মাঝি বলিল, আচ্ছ, ছুটে পয়সা দাও, চল । ভারতী কহিল, না বাপু, তুমি যাও! বাড়ি আমার এপারে, ওপারে যাবার আমার দরকার নেই । মাঝি গেল না, একটু হাসিয়া কহিল, পয়সা না হয় নাই দেবে, চল তোমাকে একটু বেড়িয়ে নিয়ে আলি। এই বলিয়া সে ঘাটের একধারে নৌকা ভিড়াইতে উদ্যত হইল। ভারতী ভয় পাইল, গাছ-পালার মধ্যে স্থানটা অন্ধকার এবং নির্জন । দীর্ঘদিন এদেশে থাকার জন্ত ইহাদের ভাষা বলিতে না পারিলেও ভারতী বুঝিত। এবং ইহাও জানিত চট্টগ্রামের এই মুসলমান মাঝি-সম্প্রদায় অতিশয় দুবৃত্ত। তাড়াতাড়ি উঠিয়া দাড়াইয়া ক্রুদ্ধস্বরে কহিল, তুমি যাও বলচি এখান থেকে, নইলে পুলিশ ডাকবো । তাহার উচ্চ কণ্ঠ ও তীক্ষ দৃষ্টিপাতে বোধ হয় চট্টগ্রামী মুসলমান এবার ভয় পাইয়া থামিল। ভারতী চাহিয়া দেখিল লোকটার বয়স আন্দাজ পঞ্চাশ পার হইয়াছে, কিন্তু সখ যায় নাই। পরণে লতাপাত ফুল-কাট লুঙ্গী, কিন্তু তেলে ও ময়লায় অত্যন্ত মলিন। গায়ে মূল্যবান মিলিটারী ফ্রক কোট, জরির পাড়, কিন্তু যেমন নোংরা তেমনি জীর্ণ। বোধহয় কোন পুরাতন জাম-কাপড়ের দোকান হইতে কেনা। মাথায় বেলদার নেকড়ার টুপি, কপাল পৰ্য্যন্ত টানা। এই মূৰ্ত্তির প্রতি রোষদৃপ্তচক্ষে চাহিয়া ভারতী কয়েক মুহূৰ্ত্ত পরেই হাসিয়া ফেলিয়া বলিল, দাদা, চেহারা যাই হোক, কিন্তু গলার আওয়াজটাকে পর্যন্ত বদলে মুসলমান করে ফেলেচ । মাঝি কছিল, যাবে না, পুলিশ ডাকবে ? ভারতী কহিল, পুলিশ ডেকে তোমায় ধরিয়ে দেওয়াই উচিত। অপূৰ্ব্ববাবুব ইচ্ছেটা আর অপূর্ণ রাখি কেন । মাঝি কহিল, তার কথাই বলচি ৷ এসো জোয়ার আর বেশি নেই, এখনো কোশ দুই যেতে হবে । ভারতী নৌকায় উঠিল, ঠেলিয়া দিয়া ডাক্তার পাকা মাঝির মতই ত্রুতবেগে অগ্রসর হইলেন। যেন দুইখানা দাড় টানাই তাহার পেশা। কহিলেন, লামা জাহাজ চলে গেল দেখলে ? ভারতী কহিল, হ্যা । ডাক্তার কছিলেন, অপূৰ্ব্ব এই দিকেই ফাস্ট ক্লাস ডেকে দাড়িয়েছিল দেখতে পেলে ? छांब्रऊँी घांफ़ नांक्लिब्रा जांनाङ्केण, नां । 3ъв