প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (ত্রয়োদশ সম্ভার).djvu/২৬০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ করিয়া লজ্জিত হইয়া বলিল, তোমার দুষ্টুমির জালায় না হেসে পারা যায় না, কিন্তু এ তোমার ভারি অন্যায়। তার পরে পেট পুরে খেয়ে দেয়ে টাকার থলিটিও নিয়ে চলে যাবে না কি ? 姆” ডাক্তার মুখের গ্রাস গিলিয়া লইয়া কহিলেন, নিশ্চয় নিশ্চয়,—অর্ধেকটা ত গেছে নবতারার বাড়ি তৈরীর খাতায়, বাকীটা কি রেখে যাবে আহমেদ-আবদুল্লা সাহেবের গাড়ি-জুড়ি কিনতে ? তামাস সৰ্ব্বাঙ্গমুনার করতে নেহাৎ মন্দ পরামর্শ प्रNeनि खांद्रष्ठौ । कि दल अजैौ ? हांः शंः शं: ভারতী বলিল, দাদা, তোমাকে হালি-ঠাট্টা করতে আগেও দেখেচি বটে, কিন্তু এমন ক্ষ্যাপার মত হাসতে আর কখনো দেখিনি । ডাক্তার জবাব দিতে যাইতেছিলেন, কিন্তু ভারতীর মুখের প্রতি চাহিয়া সহসা কিছু বলিতে পারিলেন না। ভারতী পুনশ্চ কহিল, নর-নারীর ভালবাসা কি তোমারি মত সকলের উপহাসের বস্ত যে, তাসের ছক্কা-পাঞ্জা হারার মত এর হারজিতে অট্টহাসি করা ছাড়া আর কিছুই করবার নাই ? স্বাধীনতা পরাধীনতা ছাড়া মাহুষের ব্যথা পাবার কি দুনিয়ায় কিছুই তুমি ভাবতে পারবে না ? দেখ ত একবার শশীবাবুর মুখের দিকে চেয়ে। একটা বেলার মধ্যে উনি কি হয়ে গেছেন। অপূৰ্ব্ববার যখন চলে গেলেন সেদিন, আমাকে উপলক্ষ্য করেও হয়ত ভূমি এমনি করেই হেসেচ । না, না, সে হ’ল— ভারতী বাধা দিয়া বলিয়া উঠিল, না না বলচে কিসের জন্য দাদা ? শশীবাবু তোমার স্নেহের পাত্র, তুমি এই ভেবে খুশী হয়ে উঠেচ ষে, নিৰ্ব্বোধ তাকে ফঁাদের মধ্যে ফেলে নবতারা অনেক দুঃখ দিত। ভবিষ্যতের সেই দুঃখের হাত থেকে তিনি এড়িয়ে গেলেন। কিন্তু ভবিষ্কৃতই কি মানুষের সব ? আজকের এই একটিমাত্র দিন যে ব্যথার ভার তার সমস্ত ভবিষ্যংকে ডিঙিয়ে গেল এ তুমি কি করে জানবে বল ? তুমি ত কখনো ভালবাসোনি । - শশী অতিশয় অপ্রতিভ হইয়া পড়িল। সে কোন মতে বলিতে চাহিল ষে তাহারই অন্যায়, তাহারই স্কুল, সাংসারিক সাধারণ বৃদ্ধি না থাকার জন্যই— ভারতী ব্যগ্রকণ্ঠে বলিয়া উঠিল, লজ্জা কিসের শশীবাবু ? এ ভুল কি সংসারে এক আপনিই করেচেন ? আপনার শতগুণ ভুল আমি করিনি ? তারও সহস্ৰ গুণ বেশি ভুল করে যে দুর্ভাগিনী নিঃশব্দে এ দেশ ছেড়ে চিরদিনের জন্ত চলে যেতে উষ্ঠত হয়েচে, তাকে কি ডাক্তার চেনেন না ? নবতারা ঠকিয়েচে ? ঠকাক না। তৰু ত আমাদেরই বঞ্চনার গান গেয়ে জগতের অর্ধেক কাব্য অমর হয়ে আছে। ૨૮૭