প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (ত্রয়োদশ সম্ভার).djvu/২৬৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


*ब्र९-नांश्छि-ज९4ांश ডাক্তার। যে তিনজন বাঙালী মহিলাকে আপনি নিলেন—নবতারা গেলেন, স্বয়ং প্রেসিডেন্ট যেতে উদ্যত, শুধু ভারতী— ডাক্তার সহাস্তে বলিলেন, তোমার দুশ্চিন্তার হেতু নেই, কবি, ভারতীও মহাজনের পন্থা অমুসরণ করবেন তা এক প্রকার স্থির হয়ে গেছে। প্রত্যুত্তরে ভারতী শুধু ক্রুদ্ধ কটাক্ষ নিক্ষেপ করিল, কিন্তু জবাব দিল না। ডাক্তারের পরিহাসের মধ্যে ষে ব্যথা আছে শণী ইহাই অনুমান করিয়া কহিল, আপনাকেও শীঘ্ৰ চলে যেতে হচ্চে। তাহলেই দেখুন, আপনার পথের দাবীর এ্যাক্টভিটি বর্শায় অন্তত: শেষ হয়ে গেল। কে আর চালাৰে | এই বলিয়া শশী গভীর নিশ্বাস মোচন করিল। তাহার এই দীর্ঘশ্বাস অকৃত্রিম এবং যথার্থই বেদনায় পূর্ণ, কিন্তু আশ্চর্ঘ্য এই যে, ডাক্তারের মুখের পরে ইহার লেশমাত্র প্রতিবিম্ব পড়িল না। তেমনি হাসিমুখে কহিলেন, ও কি কথা কবি ? এতকাল এত দেখে শুনে শেষে তোমারই মুখে সব্যসাচীর এই সার্টিফিকেট ! তিনজন মহিলা চলে যাবেন বলে পথের দাবী শেষ হয়ে যাবে ? মদ ছেড়ে দিয়ে কি এই হ’ল নাকি ? তার চেয়ে তুমি बब्रुं श्रांश्वांङ्ग ५८ब्रः । কথাটা তামাসার মত গুনাইলেও যে তামাসা নয় তাহা বুঝিয়াও ভারতী ঠিকমত ৰুধিতে পারিল না। কটাক্ষে চাহিয়া দেখিল, সুমিত্রা নতনেত্রে নিঃশবে বসিয়া আছে। তখন সে মুখ তুলিয়া ডাক্তারের মুখের প্রতি স্থির দৃষ্টিপাত করিয়া বলিল, দাদা, আমার ত আর বোঝবার জন্তে মদ ধরবার আবগুক নেই, কিন্তু তবু ত বুঝতে পারলাম না ; নবতার। কিছুই নয়, আর আমি তার চেয়েও অকিঞ্চিৎকর, কিন্তু সুমিত্র দিদি —যাকে তুমি নিজে থেকে প্রেসিডেন্টের আসন দিয়েচ,—তিনি চলে গেলেও কি তোমার পথের দাবীতে আঘাত লাগবে না ? সত্যি কথা বোলো দাদা, স্বদ্ধমাত্র কাউকে লাঞ্ছনা করবার জন্তেই রাগ করে ষেন বোলো না । এই ৰলিয়া সে চোখাচোখি হইবার নিঃসঞ্চি ভরসায় পলকমাত্র সুমিত্রার প্রতি দৃষ্টিপাত করিয়াই চক্ষু অন্যত্র অপসারিত করিল। চোখে চোখে মিলল না, সুমিত্র সেই ষে মুখ নীচু করিয়া বসিয়া ছিল, ঠিক তেমনি নিৰ্ব্বাক নতমুখে মূৰ্ত্তির মত বসিয়া রছিল। ডাক্তার ক্ষণকাল মৌন হুইয়া রছিলেন, তাহার পরে ধীরে ধীরে কহিলেন, জামি রাগ করে বলিনি ভারতী, সুমিত্রা অবহেলার বস্তু নয়। কিন্তু তুমি হয় ত জানো না, কিন্তু নিজে স্বমিত্ৰা ভালরূপেই জানেন ষে এ সকল ব্যাপারে আমাদের ক্ষতির পরিমাণ গণনা করতে নেই । তাছাড়া প্রাণ যাদের এমন অনিশ্চিত তাদের মূল্য স্থির হবে কি দিয়ে বল ত ? মানুষ ত স্বাবেই। যত বড় হোক, কারও অভাৰকেই বেন না আমরা সৰ্ব্বনাশ বলে ভাবি, একজনের স্থান ষেন জলস্রোতের মত জার ૨૬ જ