প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (ত্রয়োদশ সম্ভার).djvu/৯৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পথের দাবী কিছুক্ষণ হইতেই একটা তর্ক-বিতর্কের কলরোল নীচে হইতে শুনা যাইতেছিল, সহসা তাহা উদাম হইয়া উঠিল। অপূর্ব ভালমাতুষটির মত জিজ্ঞাসা করিল, আপনাদের ইস্কুল বোস্লো বোধ হয়—ছেলেরা সব পড়ায় মন দিয়েচে । ভারতী গম্ভীর মুখে কহিল, তাহলে হাক-ইকিটা কিছু কম হতো। তাদের শিক্ষকেরা বোধ করি বিষয় নিৰ্ব্বাচনে মন দিয়েচেন । আপনি যাবেন না ? যাওয়া ত . উচিত, কিন্তু আপনাকে ছেড়ে যেতে যে মন সরে না । এই বলিয়া সে মুখ টিপিয়া হাসিল । কিন্তু অপুর্বর কান পৰ্য্যন্ত রাঙা হইয়া উঠিল। সে আর একদিকে চোখ ফিরাইয়া পাশের দেয়ালের গায়ে সাজানো কাচা ঝাউপাতা দিয়া লেখা কয়েকটা অক্ষরের প্রতি সহসা দৃষ্টিপাত করিয়া বলিয়া উঠিল, ওটা কি লেখা ওখানে ? ভারতী কহিল, পড়ুন না । - অপূৰ্ব্ব ক্ষণকাল মনঃসংযোগ করিয়া বলিল, পথের দাবী । তার মানে ? ভারতী কহিল, ওই আমাদের সমিতির নাম, ওই আমাদের মন্ত্র, ওই আমাদের সাধনা ! আপনি আমাদের সভ্য হবেন ? অপূৰ্ব্ব বলিল, আপনি নিজে একজন সভ্য নিশ্চয়ই, কিন্তু কি আমাদের করতে হবে ? ভারতী বলিল, আমরা সবাই পথিক । মাচুবের মকুন্তত্বের পথে চলবার সব্ব প্রকার দাবী অঙ্গীকার করে আমরা সকল বাধা ভেঙে চুরে চলবো। আমাদের পরে যারা আসবে তারা যেন নিরুপদ্রবে হাটতে পারে, তাদের অবাধ মুক্ত গতিকে কেউ যেন না রোধ করতে পারে, এই আমাদের পণ । আসবেন আমাদের দলে ? অপূৰ্ব্ব কছিল, আমরা পরাধীন জাতি, ইংরেজ নই, ফরাসী নই, আমেরিকান —কোথায় পাবো আমরা অপ্রতিহত গতি ? স্টেশনের একটা বেঞ্চে বসবার আমাদের অধিকার নেই, অপমানিত হয়ে নালিশ করবার পথ নেই,—বলিতে বলিতে সেদিনের সমস্ত লাঞ্ছনা,—ফিরিঙ্গী ছোড়াদের বুটের আঘাত হইতে স্টেশন মাস্টারের বাহির করিয়া দেওয়া অবধি সকল অপমান কষ্ট অনুভব করিয়া তাহার দুই চক্ষু প্রদীপ্ত হইয়া উঠিল, কহিল, আমরা বসলে বেঞ্চ অপবিত্র হয়, আমরা গেলে ঘরের হাওয়া কলুষিত হয়,—আমরা যেন মানুষ নই! আমাদের যেন মানুষের প্রাণ, মানুষের রক্ত-মাংস গায়ে নেই! এই যদি আমাদের সাধনা হয়, আছি আমি আপনাদের দলে । ভারতী কহিল, আপনি কি মানুষের জালা টের পান অপূৰ্ব্ববাবু সত্যই কি կր:) 聯 دلا- سیلا