প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/১৫৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১২ দশমীর পর একাদশী গেল, দ্বাদশীও গেল, মাকে পাঠাইবার মত তিথি-নক্ষত্র গোকুলের চোখে পড়িল না। ত্রয়োদশীর দিন বাটীর পুরোহিত নিজে জাসিয়া স্বদিনের সংবাদ দিবামাত্র গোকুল অকারণে গরম হইয়া কহিল, তুমি যার খাবে, তারই সৰ্ব্বনাশ করবে ? যাও, নিজের কাজে যাও, আমি মাকে কোথাও যেতে দিতে পারব না । মনোরম সেদিন ধমক খাইয়া অবধি নিজে কিছু বলিত না, আজ সে তাহার পিতাকে পাঠাইয়া দিল । নিমাই আসিয়া কহিল, এটা ত ভাল কাজ হচ্ছে না বাবাজী ! . গোকুল কোনদিন খবরের কাগজ পড়ে না, কিন্তু আজ পড়িতে বসিয়াছিল। । কহিল, কোনটা ? বেয়ানঠাকরুণ র্তার নিজের ছেলের বাসায় যখন স্ব-ইচ্ছায় যেতে চাচ্ছেন, তখন আমাদের বাধা দেওয়া ত উচিত হয় না । * গোকুল পড়িতে পড়িতে কহিল, পাড়ার লোক শুনলে আমার অখ্যাতি করবে । নিমাই অত্যস্ত আশ্চৰ্য্য হইয়া বলিলেন, অখ্যাতি করবার আমি ত কোন কারণ দেখতে পাইনে । গোকুল শ্বশুরকে এতদিন মান্ত করিয়াই কথা কহিত । আজ হঠাৎ আগুন হইয়া কহিল, আপনার দেখবার ত কোন প্রয়োজন দেখিনে ! আমার মাকে আমি কারু কাছে পাঠাব না—বাস, সাফ, কথা । যে যা পারে আমার করুক । গোকুলের এই সাফ কথাটা বিনোদের কানে-গিয়া পৌঁছিতে বিলম্ব হইল না। প্রত্যহ বাধা দিয়া গাড়ি ফেরত দেওয়ায় সে মনে মনে বিরক্ত হইতেছিল। আজ অত্যন্ত রাগিয়! আসিয়া কহিল, দাদা, মাকে আমি আজ নিয়ে যাব । আপনি অনর্থক বাধা দেবেন না । গোকুল সংবাদপত্রে অতিশয় মনোনিবেশ করিয়া কহিল, আজকে ত হতে পারবে না । - বিনোদ কহিল, খুব পারবে। আমি এখনি নিয়ে যাচ্ছি । তাহার ক্রুদ্ধ কণ্ঠস্বর শুনিয়া গোকুল হাতের কাগজটা একপাশে ফেলিয়া দিয়া কহিল, নিয়ে যাচ্ছি বললেই কি হবে ? বাবা মরবার সময় মাকে আমার দিয়ে গেছেন—তোমাকে দেননি। আমি কোথাও পাঠাব না । - § 02