প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/৩১৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ করতে মন সরে না । মনে হয়, যদি হয়েও থাকে ত দেশের লোকের এতে গর্বের বস্তু কি আছে? Organised wiolence করবার আমাদের শক্তি নেই, প্রবৃত্তি নেই, স্বযোগ নেই। আর হঠাৎ violence ? সে ত কেবল একটা আকস্মিকতার ফল। এই যে আমরা এতগুলি ভদ্র ব্যক্তি একত্র হয়েছি, উপদ্রব করা জামাদের কারও ব্যবসা নয়, ইচ্ছাও নয়, অথচ এ কথাও ত কেউ জোরে বলতে পারিনে, আমাদের বাড়ি ফেরবার পথটুকুর মাঝেই হঠাৎ কিছু একটা বাধিয়ে না দিতে পারি। সঙ্গে সঙ্গে একটা মস্ত ফ্যাসাদ বেধে যাওয়াও ত অসম্ভব নয়। বাধেনি সে ভালই, এবং আমিও একে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করতে চাইনে, কিন্তু এ নিয়ে দাপাদাপি করে বেড়ানোর ও হেতু নাই। একেই মস্ত কৃতিত্ব বলে সান্থন লাভ করতে যাওয়া আত্মপ্রবঞ্চনা । আর indifference ? এ-কথায় যদি কেউ এই ইঙ্গিত করে থাকে যে, মহাত্মার কারারোধে দেশের লোকের গভীর ব্যথা বাজেনি, ত তার বড় মিছে কথা আর হতেই পারে না । ব্যথা আমাদের মৰ্ম্মান্তিক হয়েই বেজেছে ; কিন্তু তাকে নিঃশব্দে সহ করাই আমাদের স্বভাব, প্রতিকারের কল্পনা আমাদের মনেই আসে না । প্রিয়তম পরমাত্মীয় কাউকে যমে নিলে শোকাওঁ মন যেমন উপায়হীন বেদনায় কাদতে থাকে, অথচ, যা অবশুম্ভাবী তার বিরুদ্ধে হাত নেই, এই বলে মনকে বুঝিয়ে আবার খাওয়া পরা, আমোদ আহলাদ, হাসি-তামাসা, কাজ-কৰ্ম্ম যথারীতি পূৰ্ব্বের মতই চলতে থাকে, মহাত্মার সম্বন্ধেও দেশের লোকের মনোভাব প্রায় তেমনি । তাদের রাগ গিয়ে পড়ল জজ, সাহেবের উপর। কেউ বললে, তার প্রশংসা-বাক্য কেবল ভণ্ডামী, কেউ বললে, তার দু'বছর জেল দেওয়া উচিত ছিল, কেউ বললে বড় জ্যের তিন বছর, কেউ বললে, না চার বছর, কিন্তু ছ’বছর জেল যখন হ’লো তখন আর উপায় কি ? এখন গভনমেন্ট যদি দয়া করে কিছু আগে ছাড়েন তবেই হয় । কিন্তু এই ভেবে তিনি জেলে যাননি। র্তার একান্ত মনের আশা ছিল, হোক না জেল ছ’ বছর, হোক না জেল দশ বছর,—তাকে মুক্ত করাও ত দেশের লোকেরই হাতে। যেদিন তার চাইবে, তার একটা দিন বেশী কেউ তাকে জেলে ধরে রাখতে পারবে না, তা সে গভনমেন্ট যতই কেন না শক্তিশালী হউন । কিন্তু সে আশা তার একলারই ছিল, দেশের লোকের সে ভরসা করবার সাহস হ’লো না । তাদের অর্থোপার্জন থেকে শুরু করে আহার-নিদ্রা অব্যাহত চলতে লাগল, তাদের ক্ষুদ্র স্বার্থে কোথাও একটুকু বিঘ্ন হ’লে না, শুধু তিনি ও তার পচিশ হাজার সহকৰ্ম্মী দেশের কাজে দেশের জেলেই পচতে লাগলেন। প্রতিবিধান করবে কি, এতবড় হীনতায় লজ বোধ করবার শক্তি পর্য্যস্ত যেন এদের চলে গেছে। এরা বুদ্ধিমান, বুদ্ধি বিড়ম্বনায় Voo 8