পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/৩৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
ষোড়শী

 হৈম । তোমার জেরাও মানলেন না, বন্ধুত্বও স্বীকার করলেন না ?

 নিৰ্ম্মল । না গো, না, কোনটাই না ।

 হৈম। (হাসিয়া ফেলিয়া) একটুও না ? তোমার দিক থেকেও না ?

 নিৰ্ম্মল। এতবড় কথাটা কেবল ফাঁকি দিয়েই বার করে নিতে চাও নাকি ? কিন্তু নিজেকে জানতে যে দেরি লাগে হৈম।

 হৈম। দেরি লাগুক তবু পুরুষের হয় । কিন্তু মেয়েমানুষের এমনি অভিশাপ, আমরণ নিজের অদৃষ্ট বুঝতেই তার কেটে যায়।

 নিৰ্ম্মল । ( হৈমর হাত ধরিয়া ) তুমি কি পাগল হয়েচ হৈম ? চল, আমরা একটু তাড়াতাড়ি যাই, হয়ত পূজোর বিলম্ব হয়ে যাবে।

[ উভয়ে প্রস্থান ]
 
চতুর্থ দৃশ্য
নাটমন্দির
[ গড়চণ্ডীর মন্দির ও সংলগ্ন প্রশস্ত অলিন্দ । সম্মুখে দীর্ঘ প্রাকার-বেষ্টিত বিস্তীর্ণ প্রাঙ্গণ। প্রাঙ্গণে নাটমন্দিরের কিয়দংশ দেখা যাইতেছে। মন্দিরের দ্বার উন্মুক্ত। দক্ষিণদিকে প্রাঙ্গণে প্রবেশ করিবার পথ । সকালের কাঁচা রোদের আলো চারিদিকে পড়িয়াছে ; মন্দিরের অলিন্দে ও প্রাঙ্গণে উপস্থিত জনাৰ্দ্দন রায়, শিরোমণি ঠাকুর, নিৰ্ম্মল বসু, ষোড়শী, হৈম এবং আরও কয়েকজন নর-নারী । ]

 শিরোমণি । (ষোড়শীকে ) আজ হৈমবতী তাঁর পুত্রের কল্যাণে যে পূজা ' দিতেছেন তাতে তোমার কোন অধিকার থাকবে না, তাঁর এই সঙ্কল্প তিনি আমাদের জানিয়েচেন । তাঁর আশঙ্কা তোমাকে দিয়ে তার কার্য্য সুসিদ্ধ হবে না।

 ষোড়শী। (পাণ্ডুর মুখে) বেশ, তাঁর কাজ যাতে স্বসিদ্ধ হয় তিনি তাই করুন।

 শিরোমণি । কেবল এইটুকুই ত নয়। আমরা গ্রামস্থ ভদ্রমণ্ডলী আজ স্থির-সিদ্ধান্ত উপস্থিত হয়েচি যে, দেবীর কাজ আর তোমাকে দিয়ে হবে না। মায়ের ভৈরবী তোমাকে রাখলে আর চলবে না। কে আছ, একবার, তারাদাস ঠাকুরকে ডাক ত ।

২৯