প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/৩৯৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


बब्र६-जोहेिछा-नश्6अझै ১৭ই আশ্বিন, ১৬০১ পরম শ্রদ্ধাস্পদ সম্পাদক মহাশয়,—একটা প্রশ্ন আছে। প্রশ্নটা সাহিত্য নিয়ে । আপনি বলতে পারেন, তবে খাটি সাহিত্যিকের কাছে না গিয়ে আমার কাছে কেন ? তারও কারণ আছে। লোকে আপনাকে ঠিক কি বলে জানিনে, কিন্তু আমি জানি আপনাকে সত্যবাদী, জিতেন্দ্রিয় সাধু মানুষ বলে। কৰ্ম্ম নেই, অথচ কৰ্ম্মকে আপনি ত্যাগ করেননি । এ-ও তেমনি । সেই কৰ্ম্মহীন কৰ্ম্মই আপনার প্রবর্তকে’র সম্পাদন । তাই, বন্ধ বিভিন্ন বিষয়ে বহু লেখাই আপনাকে লিখতে হয়, দেখি, বহু চিন্তা আপনার মনের মধ্যে আসে আর যায়,—চলার পথ তাদের অবারিত কিন্তু পথ জুড়ে অন্ত পথচারীর পথ আগলানোর আধিক্কার তাদের নেই। প্রবর্তকের সম্পাদনায় কেবলমাত্র যদি কাব্য এবং গল্প-উপন্যাস নিয়ে থাকতেন, সাহিত্য-ঘটিত প্রশ্ন হলেও এ জিজ্ঞাসা আপনাকে করতাম না। যদি নিজের কাগজের মারফতে একটা উত্তর দেন অভ্যস্ত মুখী হবো । এ বিশ্বাস আছে, উত্তর দিলে সত্য উত্তরই পাবো, ফাকির কারবার আপনার নেই। আচার্ষ্যগণ বলেন, কলা-সাধনার মূল স্বত্ৰ হ’লো সত্য, শিব এবং সুন্দর । অর্থাৎ সাধনা হয় যেন সত্যের উপর প্রতিষ্ঠিত, মুন্দরের উপর প্রতিষ্ঠিত এবং তার ফল যেন হয় কল্যাণময় । যারা বিজ্ঞানের সাধক ( তত্ত্বজ্ঞান বলচিনে,--বলচি সাধারণ সাংসারিক অর্থে ) অর্থাৎ, বৈজ্ঞানিক ধারা তাদের একমাত্র মন্ত্ৰ হ’লো সত্য । সাধনার ফল সুন্দর-অসুন্দর, কল্যাণ-অকল্যাণকর—কোনটাতেই তাদের গরজ নেই । হয় ভালোই, না হলেও অপরাধ নেই । অথচ সাহিত্য-সেবায় বহুদিন ব্ৰতী থেকে নিরস্তর অঙ্গভৰ করি এখানে সত্য এবং সুন্দরে বাধে পদে পদে বিরোধ। জগতে যা ঘটনায় সত্য, সাহিত্যে হয়ত সে সুন্দর নয়, এবং যা সুন্দর সে হয়ত সাহিত্যে একেবারে মিথ্যা । ষাকে সত্য বলে জানি, তাকে মূৰ্ত্তি দিতে গিয়ে দেখি সে হয়ে ওঠে বীভৎস কদাকার, আবার অসত্যকে বর্জন করেও পাইনে সুন্দরের রূপ। তেমনি মঙ্গল-অমঙ্গলও । সাহিত্যে এ প্রশ্ন অবাস্তর স্বীকার না করেও ত পারিনে । জিজ্ঞাসা করি, সত্য ৰদি হয় মুম্বরের পরিপন্থী, কল্যাণ অকল্যাণ হয় গৌণ, সাহিত্য সাধনায় এ সমস্তার মীমাংসা কোন পথে ?* ইতি – ভৰীয় ঐশরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়

  • "প্রবর্তক-সম্পাদক প্রীমতিলাল রায়কে লিখিত ।

இர)