প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বাদশ সম্ভার).djvu/১৩৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ সেই পরশু আজ আসিয়াছে। রাত্রি বেশী নয়, বোধ হয় আটটা বাজিয়াছে। সকলেই কাজে ব্যস্ত, রাখালকে কেহই লক্ষ্য করিল না। রান্নার কাজ শেষ করিয়া সারদা চুপ করিয়া বসিয়া ছিল, রাখালকে ঘরে ঢুকিতে দেখিয়া তাড়াতাড়ি উঠিয় সমাদরে অভ্যর্থনা করিয়া বিছানায় বসিতে দিল, বলিল, আমি ভেবেছিলুম হয়তো আপনার রাত হবে, কিংবা হয়তো ভূলেই যাবেন, আসবেন না । ভুলে যাবো এ তুমি কখনো ভাবোনি সারদা, তোমার মিছে কথা । সারদা হাসি-মুখে মাথা নাড়িয়া কহিল, ই, আমার মিছে কথা। একবারও ভাবিনি আপনি ভুলে যাবেন। খেতে দিই ? দীও । হাতের কাছে সমস্ত প্রস্তুত ছিল, আসন পাতিয়া সে খাইতে দিল। পরিমিত আয়োজন, বাহুল্য কিছুতেই নাই। রাখাল খুশী হইয়া বলিল, ঠিক এমনই আমি মনে মনে চেয়েছিলুম সারদা, কিন্তু আশা করিনি। ভেবেছিলুম আর পাচজনের মতো যত্ন দেখানোর আতিশয্যে কত বাড়াবাড়িই না করবে ! কত জিনিস হয়তো ফেলা যাবে। কিন্তু সে চেষ্টা তুমি করেনি। সারদা কহিল, জিনিস তো আমার নয় দেবতা, আপনার । নিজের হলে বাড়াবাড়ি করতে ভয় হোতো না, হয়তো করতুমও—নষ্টও হোতে । ভালো বুদ্ধি তোমার ! ভালোই তো ! নইলে আপনি ভাবতেন মেয়েটার অন্যায় তো কম নয় । জেনা শোধ করে না, আবার পরের টাকায় বাবুরানি করে। রাখাল হাসিয়া বলিল, টাকার দাবী জামি ছেড়ে দিলুম সারা, আর তোমাকে শোধ করিতে হবে না, ভাবতেও হবে না। কেবল খাতাটা দাও, আমি ফিয়ে নিয়ে यांहे । সারদা কৃত্রিম গাম্ভীর্ঘ্যে মুখ গম্ভীর করিয়া বলিল, তা হলে ছাড়া-রফ হয়ে গেল বলুন ! এর পরে আপনিও টাকা চাইতে পাবেন না, আমিও না। জ্ঞতাৰে ৰদি মজি তবুও না । কেমন ? রাখাল বলিল, তুমি ভারি ? সারদা। ভাবি, জীৰন তোমাকে ফেলে গেল কি করে । সে কি চিনতে পারলে না ? সারদা মাথা নাড়িয়া বলিল, না। এ আমার ভাগ্যের লেখা দেবতা। স্বামী না, যিনি ভুলিয়ে আনলেন তিনি না, আর যিনি যমের হাত থেকে কেড়ে নিয়ে এলেন তিনিও না । কি জানি আমি কি-যে, কেউ চিনতেই পারে না । একটুখানি থামিয়া বলিল, আমার স্বামীর কথা থাক, কিন্তু জীৰনবাৰু কথা বলি। সত্যই আমাকে তিনি চিনতে পারেননি। সে বুদ্ধিই তার ছিল না। ১২৮