প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বাদশ সম্ভার).djvu/১৫২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰছ সবিতা বলিলেন, ও আমার ছেলে এই ওর পরিচয় । কিন্তু তোমার পরিচয় ওর কাছে কি দেবো দয়াময়, আমি নিজেই তো এখনো জানিনে । যখন জানতে পারবে দেবে ? দেবো। ওর কাছে আমার গোপন কিছু নেই। আমার সব দোষ-গুণ নিয়েই আমি ওর নতুন-মা। রাখাল কহিল, ছেলেবেলায় যখন কেউ আমার আপনার রইলো না, তখন আমাকে উনি আশ্রয় দিয়েছিলেন, মানুষ করেছিলেন, মা বলে ডাকতে শিখিয়েছিলেন, তখন থেকে মা বলেই জানি। চিরদিনই মা বলেই জানবো । এই বলিয়া হেঁট হইয়া সে আর একবার নতুন-মার পায়ের ধূলা লইল । বিমলবাবু বলিলেন, তারকের ওখানে তোমার নতুন-মা যেতে চান কিছুদিনের জন্তে, এখানে ভালো লাগচে না বলে । আমি বলি যাওয়াই ভালো, তোমার সন্মতি আছে ? রাখাল হাসিয়া কহিল, আছে। সত্যি বলে র" । কারণ তোমার অসম্মতিতে ওঁর যাওয়া হবে না। আমি নিষেধ করবো । আপনার নিষেধ উনি শুনবেন ? অন্ততঃ নিজের কাছে নতুন-বোঁ এই প্রতিজ্ঞাই করচেন। এই বলিয়া বিমলবাবু একটুখানি হাসিলেন । সবিতা তৎক্ষণাৎ স্বীকার করিয়া বলিলেন, ই৷ এই প্রতিজ্ঞাই করেচি। তোমার আদেশ আমি লজঘন করবো না । শুনিয়া রাখালের চোখের দৃষ্ট মুহূৰ্ত্ত কালের জন্য রুক্ষ হইয়া উঠিল, কিন্তু তখনি নিজেকে শাস্ত করিয়া সহজ গলায় বলিল, বেশ, আপনারা যা ভালো বুঝবেন করুন, আমার আপত্তি নেই নতুন-মা। এই বলিয়া সে আর কোন প্রশ্নের পূৰ্ব্বেই নীচে নামিয়ে গেল। নীচে পথের একধারে দাড়াইয়াছিল সারদ। সে সম্মুখে আসিয়া কহিল, একবার আমার ঘরে যেতে হবে দেবতা । কেন ? সারদাদের অনেক দেখেচেন বললেন । আপনার কাছে তাদের পরিচয় নেবো । কি হবে নিয়ে ? - মেয়েদের প্রতি আপনার ভয়ানক ঘৃণা। কৃতজ্ঞতার ঋণ তারা কি দিয়ে শোধ করে আপনার কাছে বসে তার গল্প শুনবো । রাখাল বলিল, গল্প করবার সময় নেই, আমার কাজ আছে । » B R