প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বাদশ সম্ভার).djvu/২৩৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ বলিলেন, সবিতা তাহা লক্ষ্য করিরাই শুধু একটু হাসিলেন। বলিলেন, কোথায় স্বানাহার করবে ? এখানে না বাড়িতে ? তুমি যেখানে বলে । বাড়িই যাও । সেখানে আমার জন্য অপেক্ষা করে বসে থাকবার কেউ নেই তুমি জানোই । আছে শুধু চাকর-বাকর আর কৰ্ম্মচারীর দল। দূর সম্পর্কের এক মাসিমা থাকেন বটে র্তার জড়বুদ্ধি ছেলেকে নিয়ে, কিন্তু তার কাছে আমার আসাটা প্রীতির ব্যাপার কিংবা ভীতির ব্যাপার সঠিক নির্ণয় করা কঠিন । তা হোক, বাড়ি যাও। ধারাই থাকুন সেখানে, সকলেই যে তারা তোমার আসার প্রতীক্ষা করচেন এটা সঠিক ; তা প্রীতিতেই হোক বা ভীতিতেই হোক সরাসরি এখানে এসে ওঠা ভাল দেখাবে না। নিম্বে হবে বুঝি ? কার হবে ? তোমার না আমার ? কার মনে হয় ? হয় যদি দুজনেরই নামে জড়িয়ে হবে । তা হলে আর দেরি করচো কেন ? ভাবচি, মনের অবস্থাবিশেষে নিনাও অনেক সময়ে প্রশংসার চেয়ে বেশি প্রলুদ্ধ করে । দার্শনিক তত্ত্ব থাকুক। বাড়ি যাও এখন । যাচ্চি। কিন্তু তুমি দেখচি আমাকে— বিমলবাবুর মুখের কথা কাড়িয়া লইয়া সবিতা বলিলেন, তাড়াতে পারলেই যেন বঁাচি। কেমন তো ? হ্যা, তাই। এখন তারই সাধনা করচি যে দয়াময় । কণ্ঠস্বর শেষের দিকে ভারি হইয়া উঠিল । বিমলবাবু বিচলিত হইলেন। অপ্রত্যাশিত বিশ্বয়ে এই অসতর্ক মুহূৰ্ত্তে তাহারই মুখ দিয়া বাহির হইয়া আসিল—সবিতা! সকরুণ হাস্তে বিমলবাবুর পানে তাকাইয়া সবিতা কহিলেন, পরে সব বলবো এখন জামায় কিছু জিজ্ঞাসা ক’রে না । না, আমি সমস্ত না জেনে বাড়ি যাবো না । তোমাকে বলতে হবে কি হয়েচে ? বলবো । বিকেলে এসো । রাতে বরং এখানে খেয়ো । আমি এখন নিজের হাতেই রাখচি । 3. বিমলবাবু বলিলেন, তাই হবে। কিন্তু দেখো, তখন যেন জামাকে ফাকি দিয়ে चछ कथांब फूनिरइ ना । r ३१0