প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বাদশ সম্ভার).djvu/২৮৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


इवेि তখন সে হাসিয়া কহিল, কিন্তু রূপ চুরি করার উপায় থাকিলে ভূমি বোধ হয় আমাকে ফাকি দিয়া এতদিনে রাজার বামে গিয়া বসিতে । মা-শোয়ে এই অভিযোগের কোন উত্তর দিল না, কেবল মনে মনে বলিল, তুমি নারীর মত দুৰ্ব্বল, নারীর মত কোমল, তাহাদের মতই স্বন্দর—তোমার রূপের সীমা নাই । এই রূপের কাছে সে আপনাকে বড় ছোট মনে করিত। \O বসন্তের প্রারম্ভে এই ইমেদিন গ্রামে প্রতি বৎসর অত্যন্ত সমারোহের সহিত ঘোড়দৌড় হইত। আজ সেই উপলক্ষে গ্রামাস্তের মাঠে বহু জনসমাগম হইয়াছিল। মা-শোয়ে ধীরে ধীরে বা-থিনের পশ্চাতে আসিয়া দাড়াইল । সে একমনে ছবি আঁকিতেছিল, তাই তাহার পদশব্দ শুনিতে পাইল না। মা-শোয়ে কহিল, আমি আসিয়াছি, ফিরিয়া দেখ। বা-থিন চকিত হইয়া ফিরিয়া চাহিল, বিস্থিত হইয়া জিজ্ঞাসা করিল, হঠাৎ এত সাজ-সজ্জা কিসের ? t বাঃ, তোমার বুঝি মনে নাই, আজ আমাদের ঘৌড়-দোঁড়? যে জয়ী হইবে সে ত আজ আমাকেই মালা দিবে। কই, তা ত শুনি নাই, বলিয়া বাথিন তাহার তুলিটা পুনরায় তুলিয়া লইতে যাইতেছিল, মা-শোয়ে তাহার গলা জড়াইয়া ধরিয়া কহিল, না শুনিয়াছ নেই। কিন্তু তুমি ওঠ—আর কত দেরি করিবে ? এই দুটিতে প্রায় সমবয়সী – হয়ত বা-থিন জুই চারি মাসের বড় হইতেও পারে, কিন্তু শিশুকাল হইতে এমনি করিয়াই তাহারা এই উনিশটা বছর কাটাইয়া দিয়াছে। খেলা করিয়াছে, বিবাদ করিয়াছে, মারপিট করিয়াছে—আর ভালবাসিয়াছে। সম্মুখের প্রকাও মুকুরে ছুটি মুখ ততক্ষণ ছুটি প্রস্ফুটিত গোলাপের মত ফুটির উঠিয়াছিল, বা-থিন দেখাইয়া কহিল, ঐ দেখ— মা-শোয়ে কিছুক্ষণ নীরবে ঐ দুটির পানে অতৃপ্ত নয়নে চাহিয়া রহিল। অকস্মাৎ আজ প্রথম তাহার মনে হইল, সেও বড় স্থানার। আবেগে ছুই চক্ষু তাহার মূৱিা আসিল, কানে কানে বলিল, জামি যেন টাঙ্গের কলঙ্ক । বা-খিন আরও কাছে তাহার মুখখানি টানিয়া জানিয়া বলিল, না, তুমি চামের ኟፃፃ