প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বাদশ সম্ভার).djvu/৩২৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


बिछिद्र ब्रकनांबजैौ इदौख-थारौँ प्ले९नक्-प्लेन्जएक ७ जशाक्त्र ७ नम्नान चाबन्न चाथा चउँौउ, अंरे লঙ্কৃতজ্ঞ চিত্তে জাপলাদিগকে নমস্কার জানাই।* * இ কবি অতুলপ্রসাদ স্বৰ্গীয় অতুলপ্রসাদ সেন আমার ভারী বন্ধু ছিলেন। আপনারা আমাকে এইসমস্ত মৃত্যুর পরে শোক-সভায় বক্তৃত করার জন্ত ডাকেন ? মাহুষে জানে যে জামি ৰকৃত করতে পারিনে ; তবুও আমাকে তারা ভেকে এনেচেন আজকের দিনে আপনাদের কিছু বলবার জন্তে । \ মৃত্যুর কিছুদিন পূৰ্ব্বে তার সঙ্গে আমার দেখা হয়েছিল-অনেক আলাপ-পরিচয় সেদিন তিনি করলেন। তার কিছুদিন পরেই তার পরলোক-গমনের খবর পাওয়া গেল—জামি বিস্থিত হলুম এই পৰ্যন্ত, কোনরকম দুঃখ বা শোক আমার এলে না। মানুষের একটা বিশেষ বয়সের পরে মানুষ যখন যায়, তখন সেটা এমন নিশ্চিত জিনিস মনে হয় যে, সেটা আমার কাছে আনন্দের আকারে দেখা দেয়। অতুলপ্রসাদ ছিলেন ভারী ভক্ত এবং ভগবৎ-প্রেমে তার মন পরিপূর্ণ ছিল। তার দয়া, দান, দাক্ষিণ্য জানাবার লোক এ-সভায় নেই,—তারা অত্যন্থ গরীবআখ্যাত অজ্ঞাত অজানা লোক। তারা যদি আসতে পারতেন তা হলে বলতেন কত বিপদের মধ্য দিয়ে নিঃশবে অতুলপ্রসাদ দিয়েচেন এবং তাদের বিপদ থেকে মুক্ত করেচেন। র্তার গান বাঙলা দেশ ছাড়িয়ে যেখানে যেখানে বাঙালী আছেন সেখানে পৌঁছেচে। তার জীবনটিও ছিল ঐ-রকম ধরনের। সংসারে থাকতে হলে দুঃখ, আনন্দ, ব্যথা সবই আছে ; তিনি তার বাইরে ছিলেন না। তার পর তার দিন এলো-ডাক পড়ল--তিনি চলে গেলেন। বয়সে ধারা কম তারা এই সিয়ে অশ্রপাত করতে পারেন, কিন্তু আমাদের দিন এসে পড়েচে– সেইদিক দিয়ে—আমার অতুলপ্রসাদের জন্ত শোক বোধ হয় না ; মনে হয়, এই নিয়ম, এইরকমেই মাহুৰ যায়—দুদিন আগে আর দু-দিন পরে। তার মৃত্যুর মধ্যে সান এই যে, তিনি কখনও কারও ক্ষতি করেননি—সকলের ভাল করে গেলেন । গানের ভিতর দিয়ে, কাব্যের ভিতর দিয়ে, তিনি বাঙলা ভাষায় অনেক উন্নতি কয়েছেন । তার গানের মত ছিল তার জীবন। এমনি করে এই ধারা ধরে-বাঙলাসাহিত্যকে যায় বড় করেচেন, অতুলপ্রসাদ তাদের মধ্যে একজন। আমিও একজন লেখক-বাঙলা ভাষার সেবক—জামার তাই মনে হয়—এমনি করে, আরও কিছু

  • १०cv दशांप्न अकूलेिड ‘ब्रशैौथ-अब्रडी छदनtव नद्वैख ।

♥ንፃ