প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বাদশ সম্ভার).djvu/৬৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রাখাল সহাস্তে কহিল, আমাকে মেয়ে দেবে এমন দুর্ভাগ। সংসারে কে আছে কাকাবাবু ? শুনিয়া ব্ৰজবাবুও হাসিলেন, বলিলেন, আছে রাজু। যারা আমাকে মেয়ে দিয়েছিল সংসারে তারা আজও লোপ পায়নি। তোমাকে মেয়ে দেবার দুর্ভাগ্য তাদের চেয়ে বেশি নয়। বিশ্বাস না হয় তোমার নতুন-মাকে বরঞ্চ আড়ালে জিজ্ঞাসা কোরে, তিনি সায় দেবেন। চললাম নতুন-বোঁ, কাল আবার দেখা হবে। সবিতা কাছে আসিয়া পায়ের ধূলা লইয়। প্রণাম করিলেন ; তিনি অস্ফুটে বোধ হয় আশীৰ্ব্বাদ করিতে করিতেই বাহির হইয়া গেলেন । পরদিন ঠিক এমনি সময় ব্ৰজবাবু আসিয়া উপস্থিত হইলেন। হাতে র্তাহার শিল-মোহর করা একটি টিনের বাক্স। সবিতা পূৰ্ব্বৰ্গহ্নেই আসিয়াছিলেন, বাক্সটা তাহার সামনে টেবিলের উপর রাখিয়া দিয়া বলিলেন, এটা এতদিন ব্যাঙ্কেই জমা ছিল, এর ভেতরে তোমার সমস্ত গহনাই মজুত আছে দেখতে পাবে। আর এই নাও তোমার বাহান্ন হাজার টাকার চেক্ । আজ আমি খালাস পেলাম নতুন-বোঁ, আমার বোঝা বয়ে বেড়াবার পালা সাঙ্গ হলো । কিন্তু তুমি যে বলেছিলে এ-সব গয়না তোমার রেণু পরবে ? ব্ৰজবাবু কহিলেন, গয়না তো আমার নয় নতুন-বোঁ, তোমার। যদি সেদিন কখনো আসে তাকে তুমিই দিও। রাখাল বারে বারে ঘড়ির প্রতি চাহিয়া দেখিতেছিল, ব্ৰজবাৰু তাহা লক্ষ্য করিয়া বলিলেন, তোমার বোধ করি সময় হয়ে এলো রাজু ? রাখাল সলজে স্বীকার করিয়া বলিল, ও-বাড়ি হয়ে সকলকে নিয়ে স্টেশনে যেতে হবে কি না— তবে আমি উঠি ; কিন্তু ফিরে এসে একবার দেখা কোরে রাজু। এই বলিয়া । তিনি উঠিয়া দাড়াইলেন। হঠাৎ কথাটা মনে পড়ায় কহিলেন, কিন্তু আজ তো তোমার নতুন-মার একলা যাওয়া উচিত নয়—কেউ পৌঁছে না দিলে— রাখাল বলিল, একলা নয় কাকাবাবু। নতুন-মার দরওয়ান, নিজের মোটর, সমস্ত মোড়েই দাড়িয়ে আছে। . ও–আছে ? বেশ, বেশ। নতুন-বোঁ, যাই তাহলে ? সবিতা কাছে আসিয়া কালকের মতো প্রণাম করিয়া পায়ের ধূলা লইলেন, আস্তে আস্তে বলিলেন, আবার কবে দেখা পাবো মেজকর্তা ? যেদিন বলে পাঠাবে আসবো । কোন কাজ আছে কি নতুন-বোঁ ? না, কাজ কিছু নেই। ব্ৰজবাবু হাসিয়া বলিলেন, শুধু এমনিই দেখতে চাও? to