প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বিতীয় সম্ভার).djvu/১০৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ এসেচি—একটি ছুটি নাতি-নাতিনী হবে, তাদের নিয়ে স্বখে-স্বচ্ছদে থাকৰ–জামার অভাব কি বল ত ? চুপ করিয়া রছিলাম। এ কথা লইয়া উত্তর-প্রত্যুত্তর করিতে প্রবৃত্তি হইল না। রাত্রে রাজলক্ষ্মী কহিল, বন্ধুর বিয়ে ত এখনো দশ-বারদিন দেরি আছে ; চল কাশীতে তোমাকে আমার গুরুদেবকে দেখিয়ে নিয়ে আসি । হাসিয়া বলিলাম, আমি কি একটা দেখবার জিনিস ? রাজলক্ষ্মী কহিল, সে বিচারের ভার যারা দেখে তাদের, তোমার নয়। কহিলাম, তাও যদি হয়, কিন্তু এতে আমারই বা লাভ কি, তোমার গুরুদেবেরই বা লাত কি ? রাজলক্ষ্মী গম্ভীর হইয়া বলিল, লাভ তোমাদের নয়, লাভ আমার । না হয় শুধু আমার জন্যেই চল । সুতরাং সম্মত হইলাম। সম্মুখে একটা দীর্ঘকালব্যাপী অকাল থাকায় এই সময়টায় চারিদিকে যেন বিবাহের বন্যা নামিয়াছিল। যখন তখন ব্যাণ্ডের কৰ্মেট এবং ব্যাগপাইপের বঁাশি বিবিধ প্রকারের বাদ্যভাণ্ড-সহযোগে মানুষকে পাগল করিয়া তুলিবার যোগাড় করিয়াছিল। আমাদের স্টেশন-যাত্রার পথেও এমনি কয়েকটা উন্মত্ত শবের ঝড় প্রচও বেগে বহিয়া গেল। তেজট। একটু কমিয়া আসিলে রাজলক্ষ্মী সহসা প্রশ্ন করিল, আচ্ছা, তোমার মতেই যদি সবাই চলে, তাহলে ত গরীবদের আর বিয়ে করাও হয় না, ঘর-সংসার করাও চলে না ; তা হলে স্বষ্টি থাকে কি করে ? তাহার অসামান্য গাম্ভীৰ্য্য দেখিয়া হাসিয়া ফেলিলাম। বলিলাম, স্বাক্টরক্ষার জন্যে তোমার কিছুমাত্র দুশ্চিন্তার আবগুক নেই। কারণ, আমার মতে চলবার লোক পৃথিবীতে বেশী নেই। অন্ততঃ আমাদের এ-দেশে ত নেই বললেই চলে। রাজলক্ষ্মী কহিল, না থাকাই ত ভাল ! বুড়লোকেরাই শুধু মানুষ, আর গরীব বলে কি তারা সংসারে ভেসে এসেছে ? তাদের ছেলেপুলে নিয়ে ঘরকন্নার সাধআহলাদ নেই। কহিলাম, সাধ-আহলাদ থাকলেই যে তাকে প্রশ্রয় দিতে হবে, তার কি কোন षं वांछ् ि? রাজলক্ষ্মী জিজ্ঞাসা করিল, কেন নাই আমাকে বুঝিয়ে দাও। একটু চুপ করিয়া থাকিয়া বলিলাম, দরিদ্র নির্বিশেষেই আমার এ মত নয়, আমার মত শুধু দরিদ্র ভদ্ৰ-গৃহস্থদের সম্বন্ধেই, তার কারণও তুমি জানো বলেই আমার বিশ্বাস । রাজলক্ষ্মী জিদের স্বরে কহিল, তোমার ও মন্ত ভুল। আমারও কেমন জিদ চাপিয়া গেল। বলিয়া ফেলিলাম, হাজার ভুল হলেও } a +