প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বিতীয় সম্ভার).djvu/১৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শ্ৰীকান্ত প্রশংসা শুনিয়া কর্মকর্তা বাবুট আহলাদে গলিয়া বারংবার মাথা নাড়িতে লাগিলেন। তিনি পূর্ণিয়া জেলার লোক, দেখিলাম, তিনি বাঙলা বলিতে না পারিলেও বেশ বুঝেন। কিন্তু পিয়ারীর কান পৰ্য্যন্ত রাঙা হইয়া উঠিল। কিন্তু সেটা যে লজ্জায় নয়-রাগে, তাহাও বুঝিতে আমার বাকী রহিল না। কিন্তু ভ্ৰক্ষেপ করিলাম না, বাবুটিকে উদেশ্ব করিয়া তেমনি হাসি-মুখে বাঙলা করিয়া কহিলাম, আমার আসার জন্যে আপনাদের আমোদ-আহ্লাদের যদি এতটুকু বিঘ্ন হয় ত অত্যন্ত দুঃখিত হব। গান-বাজনা চলুক । বাবুটি এত খুশী হয়ে উঠিলেন যে আবেগে আমার পিঠের উপর একটা চাপড় মারিয়া বলিলেন, বহুৎ আচ্ছা বাবু!—পিয়ারীবিবি, একঠো ভালা সঙ্গীত হোক । সন্ধ্যার পর হবে —আর এখন নয়, বলিয়া পিয়ারী হরমোনিয়ামটা দূরে ঠেলিয়া দিয়া সহসা উঠিয়া গেল । এইবার বাবুটি আমার পরিচয় গ্রহণের উপলক্ষে নিজের পরিচয় দিতে লাগিলেন। র্তার নাম রামচন্দ্র সিংহ। তিনি পূর্ণিয়া জেলার একজন জমিদার, দ্বারভাঙ্গার মহারাজ তার কুটুম্ব, পিয়ারীবিবিকে তিনি সাত-আট বৎসর হইতে জানেন। সে তার পূর্ণিয়ার বাড়িতে তিন-চারবার মুজ রা করিয়া আসিয়াছে। তিনি নিজেও অনেকবার এখানে গান শুনিতে আসেন ; কখনও কখনও দশ-বারো দিন পর্য্যন্ত থাকেন—মাস-তিনেক পূৰ্ব্বেও একবার আসিয়া এক সপ্তাহ বাস করিয়া গিয়াছেন, ইত্যাদি ইত্যাদি। আমি কেন আসিয়াছি—এইবার তাহ জিজ্ঞাসা করিলেন । আমি উত্তর দিবার পূৰ্ব্বেই পিয়ারী আসিয়া উপস্থিত হইল। তাহার দিকে চাহিয়া কহিলাম, বাইজীকেই জিজ্ঞেস করুন না, কেন এসেচি । পিয়ারী আমার মুখের দিকে চাহিয়া একটা তীব্র কটাক্ষ করিল, কিন্তু জবাব দিল সহজ শাস্ত স্বরে ; কহিল, উনি আমার দেশের লোক । আমি হাসিয়া কহিলাম, বাবুজী, মধু থাকলেই মৌমাছি এসে জোটে—তাহ দেশ-বিদেশের বিচার করে না । কিন্তু বলিয়াই দেখিলাম, রহস্যটা গ্রহণ করিতে না পারিয়া পূর্ণিয়া জেলার জমিদার মুখখানা গম্ভীর করিলেন, এবং তার চাকর আসিয়া যেই জানাইল, সন্ধ্য-আহ্নিকের জায়গা করা হইয়াছে, তিনি তখনই প্রস্থান করিলেন। তবলচী এবং আর দুইজন ভদ্রলোকও তাহার সঙ্গে সঙ্গে বাহির হইয়া গেল। তার মনের ভাবটা অকস্মাৎ কেন এমন বিকল হইয়া গেল তাহার বিন্দুবিসর্গও বুঝিলাম না। রতন আসিয়া কহিল, মা, বাবুর বিছানা করি কোথায় ? পিয়ারী বিরক্ত হইয়া বলিল, আর কি ঘর নেই রতন ? আমাকে জিজ্ঞেস না করে কি এতটুকু বুদ্ধি খাটাতে পারিস নে ? যা এখান থেকে, বলিয়া রতনের সঙ্গে