প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বিতীয় সম্ভার).djvu/১৩২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ রাজলক্ষ্মী বলিল, না হয় আজ থাকৃ। রাত্তিরে আর গিয়ে কাজ নেই ; হিম লাগতে পারে, কাল সকালেই যাবে। এতক্ষণে যেন আমার চৈতন্য ফিরিয়া আসিল। বলিলাম, এ গ্রামে এ পাড়ার মধ্যে তুমি ঢুকলে কোন সাহসে ? তুমি কি মনে কর তোমাকে কেউ চিনতে পারবে না। রাজলক্ষ্মী সহজেই কহিল, বেশ যা হোক। এইখানেই মানুষ হলাম, আর এখানে আমাকে চিনতে পারবে না ? যে দেখবে সেই ত চিনবে। তবে ? কি করব বল? আমার কপাল, নইলে তুমি এখানে এসে অমৃখে পড়বে কেন ? এলে কেন? টাকা চেয়েছিলাম, টাকা পাঠিয়ে দিলেই ত হ’তো । তা কি কখনও হয় ? এত অস্থখ শুনে কি শুধু টাকা পাঠিয়েই স্থির থাকতে পারি ? বলিলাম, তুমি না হয় স্থির হলে, কিন্তু আমাকে যে ভয়ানক অস্থির করে তুললে । এখনি সবাই এসে পড়বে, তখন তুমিই বা মুখ দেখাবে কি করে, আর আমিই বা জবাব দেব কি ! রাজলক্ষ্মী প্রত্যুত্তরে শুধু আর একবার ললাট স্পর্শ করিয়া কহিল, জবাব আর কি দেবে—আমার অদৃষ্ট ! তাহার উপেক্ষা এবং ঔদাসীন্যে নিতান্ত অসহিষ্ণু হইয়া বলিলাম, অদৃষ্টই বটে ! কিন্তু লজ-সরমের মাথা কি একেবারে খেয়ে বসে আছে ? এখানে মুখ দেখাতেও তোমার বাধলো না ? রাজলক্ষ্মী তেমনি উদাসকণ্ঠে উত্তর দিল; লজ্জ-সরম আমার যা কিছু, এখন সব তুমি। ইহার পরে আবার বলিবই বা কি ! শুনিবই বা কি ! চোখ বুজিয়া চুপ করিয়া পড়িয়া রহিলাম । খানিক পরে জিজ্ঞাসা করিলাম, বন্ধুর বিয়ে নির্বিঘ্নে হয়ে গেছে ? রাজলক্ষ্মী কহিল, হঁী । এখন কোথা থেকে আসচো ? কলকাতা থেকে ? না, পাটনা থেকে ! সেইখানেই তোমার চিঠি পেয়েচি। আমাকে নিয়ে যাবে কোথায় ?—পাটনায় ? রাজলক্ষী একটু ভাবিয়া কহিল, একবার সেখানে ত তোমাকে যেতেই হবে। আগে কলকাতায় যাই চল, সেখানে দেখিয়ে শুনিয়ে ভাল হলে—তারপর প্রশ্ন করিলাম, কিন্তু তার পরেই বা আমাকে পাটনায় যেতে হবে কেন শুনি ! রাজলক্ষ্মী কহিল, দানপত্র ত সেইখানে রেজেক্ট করতে হবে। লেখাপড়া সব ১২৬