পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বিতীয় সম্ভার).djvu/২২৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


*अॅ९-जॉश्ऊिा-नर्ॐई ন। তাকে ছাড়িয়ে দেবে, এ সব কিছু হত না। তুমি ত হাসবেই রম, মেয়েমানুষ, বাড়ির বার হতে ত হয় না, কিন্তু আমাদের উপায় কি হবে বল ত ? সত্যিই যদি একদিন আমার মাথাটা ফাটিয়ে দেয় ? মেয়েমানুষের সঙ্গে কাজ করতে গেলেই এই দশা হয়, বলিয়া বেণী ভয়ে ক্রোধে জালায় মুখখানা কি এরকম করিয়া বসিয়া রহিল। রম স্তম্ভিত হইয়া রহিল। বেণীকে সে ভালমতেই চিনিত, কিন্তু এতবড় নির্লজ অভিযোগ সে তাহার কাছেও প্রত্যাশা করিতে পারিত না । কোন উত্তর না দিলা কিছুক্ষণ দাড়াইয়! থাকিয়া সে অন্যত্র চলিয়া গেল । বেণী তখন হাক-ডাক করিয়া গোটা-দুই আলো এবং পাঁচ-ছয়জন লোক সঙ্গে করিয়া আশে-পাশে সতর্ক দৃষ্টি রাখিয়া ত্রস্ত ভীতপদে প্রস্থান করিল। ›ማ বিশ্বেখর ঘরে ঢুকিয়া অশ্রুভরা রোদনের কণ্ঠে প্রশ্ন করিলেন, আজ কেমন আছিল মা রমা ? রমা তাহার মুখের পানে চাহিয়া একটুখানি হাসিয়া বলিল, আজ ভাল আছি জ্যাঠাইমা । বিশ্বেশ্বরী তার শিয়রে আসিয়া বসিলেন এবং মাথায় মুখে হাত বুলাইতে লাগিলেন। আজ তিনমাসকাল রমা শয্যাগত। বুক জুড়িয়া কাসি এবং ম্যালেরিয়ার বিষে সৰ্ব্বাঙ্গ সমাচ্ছন্ন। গ্রামের প্রাচীন কবিরাজ প্রাণপণে ইহার বুথা চিকিৎসা করিয়া মরিতেছে। সে বুডা ত জানে না কিসের অবিশ্রাম আক্রমণে তাঁহার সমস্ত স্নায়ু-শিবা অহৰ্নিশি পুডিয়া খাক হইযা যাইতেছে। শুধু বিশ্বেশ্বরীর মনের মধ্যে একটা সংশয়ের ছযা ধীরে ধীরে গাঢ় হইয়| উঠিতেছিল। রমাকে তিনি কস্তার মতষ্ট স্নেহ করিতেন, সেখানে কোন ফাকি ছিল না ; তাই সে অত্যন্ত স্নেহুই রমার সম্বন্ধে তাহার সত্যদৃষ্টিকে অসামান্যরূপে তীক্ষ কবিযা দিতেছিল। অপরে যখন ভূল বুঝিরা, ভূল আশা করিয়া, ভুল ব্যবস্থা করিতে লাগিল, তাহার তথন বুক ফাটিয়া যাইতে লাগিল। তিনি দেখিতেছিলেন রমার চোখ দুটি গভীর কোটরপ্রবিষ্ট, কিন্তু টে অতিশয় তীর। যেন বহু দূরের কিছু একটা অত্যন্ত কাছে করিয়া দেখিবার একাগ্র বাসনায় এরূপ অসাধারণ তীক্ষ হইস উঠিয়াছে। তিনি ধীরে ধীরে ডাকিলেন, কুমা ? ২২ e