প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বিতীয় সম্ভার).djvu/২৩০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ করুণকণ্ঠে কছিল, আচ্ছা জ্যাঠাইমা, মিথ্যে সাক্ষী দিয়ে নিরপরাধীকে দগুভোগ করানর শাস্তি কি ? বিশ্বেশ্বরী জানালার বাহিরে চাহিয়া রমার বিপৰ্য্যস্ত চুলের রাশির মধ্যে অঙ্গুলি-চালনা করিতে করিতে হঠাৎ দেখিলেন, তাহার নিমীলিত দুষ্ট চোখের প্রাস্ত বহিয়া অশ্রু গড়াইয় পড়িতেছে। সস্নেহে মুছাইয়া কহিলেন, কিন্তু তোমার ত হাত ছিল না মা । মেয়েমাল্লষের এত বড় কলঙ্কের ভয় দেখিয়ে যে কণপুরুষেরা তোমার ওপর এই অত্যাচার করেচে, সমস্ত গুরুদণ্ডক্ট তাদের । তোমাকে ত এর একটি কিছুই বষ্টতে হবে না মা ? বলিয়া তিনি তাহার চক্ষু মুছাইয়া দিলেন । র্তাহার একটুমাত্র আশ্বাসেই রমার রুদ্ধ অশ্রু এইবার প্রস্রবণের ন্যায় ঝরিয়া পড়িতে লাগিল। কিছুক্ষণ পরে সে কহিল, কিন্তু তার যে তার শত্রু। তার বলেন, শক্রকে যেমন করে হোক নিপাত করতে দোষ নেই । কিন্তু আমার ত সে কৈফিয়ত নেই জ্যাঠাইমা । তোমারই বা কেন নেই মা ? প্রশ্ন করিয়া তিনি দৃষ্টি আনত করিতেই অকস্মাৎ তাহার চোখের উপর যেন বিদ্যুৎ খেলিয়া গেল। যে সংশয় মুখ ঢাকিয়া একদিন তার মনের মধ্যে অকারণে আনাগোনা করিয়া বেড়াইত, সে যেন তাহার মুখোস ফেলিয়া দিয়া একেবাবে সোজা হইয়া মুখোমুখি দাড়াইল। আজ তাহাকে চিনিতে পারিয়া ক্ষণকালের জন্য বিশ্বেশ্বরী বেদনায় বিস্ময়ে স্তম্ভিত হইয়া গেলেন। রমায় হৃদয়ের ব্যথা আয় তাহার অগোচর রহিল না । রমা চোখ বুজিয়া ছিল বিশ্বেশ্বরীর মুখের ভাব দেখিতে পাইল না। ডাকিল, জ্যাঠাইমা । জ্যাঠাইম চকিত হইয় তাহার মাথাটা একটুখানি নাড়িয়া দিয়া সাড়া দিলেন । রম কহিল, একটা কথা আজ তোমার কাছে স্বীকার করব জ্যাঠাইমা । পিরপুত্বের জাফর আলির বাড়িতে সন্ধ্যার পর গ্রামের ছেলেরা জড় হয়ে রমেশদার কথামত সৎ আলোচনাই করত, বদমাইসের দল বলে তাদের পুলিশে ধরিয়ে দেবার একটা মতলব চলছিল-আমি লোক পাঠিয়ে তাদের সাবধান করে দিয়েচি। কারণ পুলিশ ত এই চায়। একবার তাদের হাতে পেলে ত আর রক্ষা রাখত না। শুনিয়া বিশ্বেশ্বরী শিহরিয়া উঠিলেন—বলিস কিরে ? নিজের গ্রামের মধ্যে পুলিশের এই উৎপাত বেণী মিছে করে ডেকে আনতে চেয়েছিল ? য়মা কহিল, আমার মনে হয় বড়দার এই শাস্তি তারই ফল । আমাকে মাপ করতে পারবে জ্যাঠাইমা ? বিশ্বেশ্বরী ইেট হইয়া নীরবে রুমার ললাট চুম্বন করিলেন। বলিলেন, তার २९१