প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বিতীয় সম্ভার).djvu/৩২৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিরাজ-বেী সাবধান । বলিযা রাজেন্দ্র দাউদেব সতর্ক করিযী দিয়া তাহদের প্রতি দৃষ্টি রাখিয়া বিরাজের উদ্দেশে লাগলে, ভিতরে আমুন’ বলিয়া নিজে গিয়া কামরায় প্রবেশ করিল। বিরাজ মোকাচ্ছন্ন, যন্ত্র চালিতের মত পিছনে আসিযা ভিতরে পা দিয়াই অকস্মাৎ ‘ম গো’ বলিয়া চেচাইয়া উঠিল। * সে চীৎকারে রাজেন্দ্র চমকাইয়া উঠিল। যেন, অস্পষ্ট দীপালোকে বিরাজের দুই চোখ রক্তমাখা সিথার সিন্দুর চামুণ্ডাব ত্রিনয়নের মত জলিয়া উঠিয়াছে মাতাল সে আগুনের স্বমুখ হইতে জাকত কুকুরেব ন্যাস একটা ভীত ও বিকৃত শব্দ করিয়া কাপিয়া সরিয়া দাড়াইল । মানুষ না জানিয়া অন্ধকারে পায়ের নীচে, ক্লেদাক্ত শীতল ও পিচ্চিল সরীসৃপ মাড়াইয়া ধরিলে যে ভাবে লাৰাইয় উঠে, তেমনই করিয়া বিরাজ ছিটকাইয়া বাছিরে আসিয়া পড়িল—একবার জলের দিকে চাহিয়, পবক্ষণে, ‘মা গে। এ কি পদুম মা ? বলিয়া অন্ধকাব অতল জলের মধ্যে কঁপাইবা পডিল। দাউী-মাৰিয়া আৰ্ত্তনাদ করিষা উঠিল, ভূটাছুটি করিখা বজরা উন্টাইয়া ফেলিবাব উপক্রম করিল—জার কিছুষ্ট করিতে পারিল না। সবাই প্রাণপণে জলের দিকে চাহিয়াও সে দুর্ত্যে অন্ধকারে কিছুই দেখিলে পাইল না। শুধু রাজেন্দ্র এক চুল নড়িল না। নেশা তাঙ্কার ছুটিয়া গিয়াছিল । তথাপি সে দাড়াইয়া বহিল। কিছুক্ষণ স্রোতের টানে বজরা আপনি বাহিরে জাসিয় পড়ায় মাঝি উদ্বিগ্ন মুখে কাছে জাসিয়া জিজ্ঞাসা করিল, বাবু কি করা যাবে ? পুলিশে খবর দিতে হবে ত ? রাজেন্দ্র বিহালের মত তাছার মুখের পানে চাহ্যি থাকিবা ভয়-কণ্ঠে বলিল, BBBS BB BBB BB S BS BBB BSBB BBB BBSS BB BB পুরান লোক, বাবুকে চিনিত, সবাই চিনে- তাই ব্যাপারটা জাগে, কতক ভঞ্চমানই করিয়াছিল। এখন এই ইঙ্গিতে তাহার চোখ খুলিয়া গেল। সে অপব সকলকে একত্র করিয়া চুপিচুপি আদেশ দিয়া বজরা উড়াইয়া লই অদৃষ্ঠ হইয়া গেল। কলিকাতার কাছাকাছি আসিয়া রাজেন্স ষ্টাক্ষ ছাডিল । গত রজনীর সুগভীর অন্ধকারে মুখোমুখি হইযা সে যে চোখ দেখিয়াছিল, স্মৰণ করিয়া আজ দিনের বেলায় এতদূর আসিয়াও তাহার গা ছম ছম্ করিতে লাগিল। সে মনে মনে নিজের কান মলিয়া বলিল, ইহজীবনে ও কাজ আর নয়। কিসের মধ্যে যে কি লুকান থাকে, কেহই জানে না। পাগলী যে কাল চোখ দিয়া তাহার পৈতৃক প্রাণটা শুধিয়া লয় নাই, ইহাই সে পরম ভাগ্য বলিয়া বিবেচনা করিল এবং কোন কারণে কখনও সে যে ও মুখে হইতে পারিবে, সে ভরসা তাহার রহিল না। মুখ কুলটা লইয়াই এতাবৎ নাড়াচাড়া করিয়াছে। সতী যে কি ৰম্ভ ভৰা জানিত না। আজ পাপিঠের কলুৰিত জীবনে প্রথম চৈতন্য হইল, খোলস লইয়া খেলা করা চলে, কিন্তু জীবদ্ধ ৰিষধর অত বড় জমিদার-পুত্রেরও ক্রীড়ার সামগ্ৰী নহে। ר לכא