প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বিতীয় সম্ভার).djvu/৩৮৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


X6. কথাটাকে আর অধিক ঘাটাঘাটি না করিয়া ক্ষেত্রমোহন শৈলেশের ক্রোধ ও উত্তেজনাকে শাস্ত হুইবার পাচ-সাত দিন সময় দিয়া আর একদিন ফিরিয়া আসিয়া তখন ভবানীপুর সম্বন্ধে আলোচনা করিবেন, ইহাই স্থির করিয়া তিনি উমাকে সঙ্গে লইয়া বাড়ি চলিয়া গেলেন । কিন্তু সপ্তাহ গত না হইতেই ছাপরার কোর্টে হঠাৎ একটা মোকদম পাওয়ায় তাহাকে কলিকাতা ছাড়িয়া যাইতে হইল। যাইবার পূৰ্ব্বে পাত্রীপক্ষ ও পাত্র-পক্ষের তরফে বিভাকে অাশা দিয়া গেলেন যে, কেস যতটা হোপলেস মনে হইতেছে, বস্তুত তাহা নয়। বরঞ্চ, মাছ চারের দিকেই ঝুঁকিয়াছে, হঠাৎ টোপ গিলিয়া ফেলা কিছুই বিচিত্র নয়। অনেকদিন পরে স্ত্রীর সহিত আজ তাহার সম্ভাবে বাক্যালাপ হইল। উমার মুখে বিতা কিছু কিছু ঘটনা শুনিয়াছিল, কহিল, আমি মনে করতুম উষা-বৌদিদির তুমি পরম বন্ধু, তুমি যে আবার দাদার বিয়ের উদ্যোগ করতে পারে, মাসখানেক আগে এ কথা ভাবতেও পারতুম না। ক্ষেত্রমোহন কহিলেন, মাসখানেক পূৰ্ব্বে কি আমিই ভাবতে পারভূম ? কিন্তু এখন শুধু ভাবা নয়, উচিত বলেই মনে হয়। উষা-বৌঠাকরুনের বন্ধু আমি এখনও, এবং চিরদিন তার শুভ কামনাই করব ; কিন্তু যা হবার নয়, হয়ে লাভ নেই তার জন্যে মাথা খুঁড়ে মরেই বা ফল কি ! বিভা অতি-বিজ্ঞের চাপাহাসি দ্বারা স্বামীকে বিদ্ধ করিয়া বলিল, তোমরা পুরুষমানুষ বলেই বোধ হয় বৌঠাকরুনটিকে বুঝতে এত দেরি হ’ল, আমি কিন্তু দেখবামাত্রই তাকে চিনেছিলুম। তাকে নিয়ে আমরা চলতে পারতুম না। ক্ষেত্রমোহন কহিলেন, সে ত চোখেই দেখতে পেলুম বিভা, তাকে সরে পড়তে হ’ল এবং তার সম্বন্ধে আমাদের মধ্যে ষে বোঝবার পার্থক্য ঘটেছিল তাতেও সন্দেহ নেই। একটু অন্য রকমের হলে আজ জিনিসটা কি দাড়াত এখন সে আলোচনা বৃথা, তবে এ কথা তোমার মালি, ভুল আমার একটু হয়েছিল। বিভা কহিল, ষাক, তা হলেই হ’ল । জপ-তপ আর হিস্থস্থানীর মুখ্যাতিতে হঠাৎ ষে রকম মেতে উঠেছিলে, আমার ত ভয় হয়েছিল। আমরাও মুসলমান-খ্ৰীষ্টান নই, কিন্তু নিজে ছাড়া সবাই ছোট, হাতে খেলেছুলেই জাত যাবে—এ দৰ্প কেন ? শুধু ভট্চাধ্যিগিরি ছাড়া জার সব রাস্তাই নরকে যাবার, এই ধারণা তার বাপের বাড়িতে চলতে পারে, কিন্তু এখানে পারে না। আর পারে না বলেই ত স্বামীর আশ্রন্থে তার স্থান হ’ল না। ՓՊծ