প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (নবম সম্ভার).djvu/১০৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ কমল কিছুই বুঝিতে পারিল না, আশ্চৰ্য্য হইয়া চাহিয়া রহিল । হরেন্দ্র লজ্জা পাইয়া কহিল, বৌদির অনেকদিন থেকে আমার ওপরে নালিশ আছে, এ তারই শাস্তি। এই বলিয়া সে সংক্ষেপে জিনিসটা বিবৃত করিয়া কহিল, বাপ-ম-মরা নিরাশ্রয় গুটি-কয়েক ছাত্র আছে আমার—তারা আমার কাছে থেকে ইস্কুলে কলেজে পড়ে। তাদের ওপরেই ওঁর যত আক্রোশ । কমল অত্যন্ত বিস্ময়াপন্ন হইয়া কহিল, তাই নাকি ? কৈ এত এতদিন শুনিনি ? হরেন্দ্র বলিল, শোনবার মত কিছুই নয়। কিন্তু চরিত্রবান ভাল ছেলে তারা । তাদের আমি ভালবাসি । নীলিমা ক্রুদ্ধকণ্ঠে কছিল, বড় হয়ে তার দেশোদ্ধার করবে এই তাদের পণ । অর্থাৎ গুরুর মত ব্ৰহ্মচারী হয়ে দিগ্বিজয়ী বীর হবে বোধ করি । হরেন্দ্র বলিল, যাবেন একবার তাদের দেখতে ? দেখলে খুশি হবেন। কমল তৎক্ষণাৎ সম্মত হইয়া বলিল, আমি কালই যেতে পারি—যদি নিয়ে যান। হরেজ বলিল, না কাল নয়, আর একদিন । আমাদের আশ্রমের রাজেন এবং সতীশ গেছে কাণী বেড়াতে । তারা ফিরে এলে আপনাকে নিয়ে যাব । আমি নিশ্চয় বলতে পারি—তাদের দেখলে আপনি খুশিই হবেন। অবিনাশ মাত্র আসিয়া দাড়াইয়াছিলেন, শুনিয়া চক্ষু বিস্ফারিত করিয়া কহিলেন, কতকগুলো লক্ষ্মীছাড়ার আড্ডা বুঝি এরই মধ্যে আশ্রম হয়ে উঠল ? কত ভণ্ডামিই তুই জানিস হরেন ! নীলিমা রাগ করিল। কহিল, এ তোমার অন্যায় মুখুয্যেমশায়। ঠাকুরপোত তোমার কাছে আশ্রমের চাদ চাইতে আসেনি যে ভণ্ড বলে গাল দিচ্চ ! নিজের খরচে পরের ছেলে মানুষ করাকে ভণ্ডামি বলে না। বরঞ্চ যারা বলে—তাদেরই তাই বলে ডাকা উচিত। হরেক্স হাসিয়া বলিল, বৌদি, এইমাত্র যে আপনি নিজেই তাদের ভেড়ার পাল বলে তিরস্কার করছিলেন—এখন আপনারই কথার প্রতিধ্বনি করতে গিয়ে সেজদার ভাগ্যে এই পুরস্কার ? নীলিমা বলিল, আমি বলছিলাম রাগে। কিন্তু উনি বলেন কোন লজ্জায় ? ভণ্ডামিক ধারণা আগে নিজের মধ্যে স্পষ্ট হয়ে উঠুক, তার পরে যেন পরকে বলতে যান । , ! , কমল জিজ্ঞাসা করিল, আপনার ছেলেরা ত সবাই ইস্কুল-কলেজে পড়েন ? হরেন্দ্র বলিল, ই, প্রকাশ্বে তাই বটে। ఏ\9