প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (নবম সম্ভার).djvu/১৯২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


R3 বেলার মুখের প্রতি চাহিয়া আগুবাবু একটু হাসিলেন, কহিলেন, কেমন, বর্ণনা আমার মিললো তো ? বুড়োবয়সের extravagance বলে উপহাস করা হয়নি, মানলে ত ? মহিলাটি নিৰ্ব্বাক হইয় রছিলেন। আগুবাবু কমলের হাতখানি বার-কয়েক নাড়াচাড়া করিয়া বলিতে লাগিলেন, এই মেয়ের বাইরেট দেখেও মানুষের যেমন আশ্চৰ্য্য লাগে, ভেতরটা দেখতে পেলে তেমনি অবাকু হতে হয়। কেমন হরেন্দ্র, टैिंक नग्न ? হরেন্দ্র চুপ করিয়া রহিল ; কমল হাসিয়া জবাব দিল, এ ঠিক কি না তাতে সন্দেহ আছে, কিন্তু কেউ যদি আপনাকে extravagant বলে তামাসা করে থাকেন, তিনি যে বেঠিক নন তাতে সন্দেহ নেই। মাত্রাজ্ঞানটা আপনার এ-সংসারে অচল। ইস, তাই বই কি ? বলিয়াই আশুবাবু গম্ভীর সমেহের মুরে কহিলেন, এ-বাড়িতে খাওয়াতে তোমাকে কিছুতেই পারবো না জানি, কিন্তু নিজের বাসাতে আজ কি খেলে বল ত ? রোজ যা খাই, তাই। • তবু কি শুনিই না? বেলা ভাবছিলেন, এও আমি বাড়িয়ে বলেচি। কমল কহিল, অর্থাৎ আমার সম্বন্ধে আমার অসাক্ষাতে অনেক আলোচনাই হয়ে গেছে ? তা হয়েচে—অস্বীকার করবে না। রৌপ্য-পাত্রে একথান ছোট কার্ড লইয়া বেহার ঘরে ঢুকিল। লেখাটা সকলেরই চোখে পড়িল এবং সকলেই আশ্চৰ্য্য হইলেন। এ-গৃহে অজিত একদিন বাড়ির ছেলের মতই ছিল, কিন্তু আগ্রায় থাকিয়াও আর আসে না । হয়ত ইহাই স্বাভাবিক । তথাপি এই না-আসার লজ্জা ও সঙ্কোচ উভয় পক্ষেই এমনিই একটা ব্যবধান স্বষ্টি করিয়াছে যে তাহার এই অপ্রত্যাশিত আগমনে শুধু আগুবাবুই নয়, উপস্থিত সকলেই একটু চমকিত হইলেন। র্তাহার মুখের পরে ভারি একটা উদ্বেগের ছায়া পড়িল, কহিলেন, তাকে এই ঘরেই নিয়ে আয় । খানিক পরে অজিত ঘরে ঢুকিল। পরিচিত ও অপরিচিত এতগুলি লোকের উপস্থিতির সম্ভাবনা সে আশঙ্কা করে নাই। ב"על