প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (নবম সম্ভার).djvu/২৭১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শেষ প্রশ্ন দিতে ভুলেচি কমল। বেলার স্বামী এসেচেন নিতে, বোধ হয় ওদের একটা reconcilation o'osi | ° কমল কিছুমাত্র বিস্ময় প্রকাশ করিল না, শুধু কহিল, কিন্তু এখানে এলেন না যে ! আপ্তবাবু বলিলেন, বোধ হয় আত্ম-গরিমায় বাধলে । যখন বিবাহ-বন্ধন ছিন্ন করার মামলা ওঠে, তখন বেলার বাবার চিঠির উত্তরে সম্মতি দিয়েছিলুম। ওর স্বামী সেটা ক্ষমা করতে পারেনি। আপনি সম্মতি দিয়েছিলেন ? আশুবাবু বলিলেন, এতে আশ্চৰ্য্য হ’চ্চ কেন কমল ? চরিত্র-দোষে যে-স্বামী অপরাধী তাকে ত্যাগ করায় আমি অন্যায় দেখিনে । এ অধিকার কেবল স্বামীর আছে, স্ত্রীর নেই এমন কথা আমি মানতে পারিনে। 馨 কমল নিৰ্ব্বাক্ হইয়া রহিল। র্তাহার চিন্তার মধ্যে যে কাপট্য নাই—অন্তর ও বাহির এই সুরে বাধা, এই কথাটাই আর একবার তাহার স্মরণ হইল। নীলিমা দ্বারের নিকট হইতে নমস্কার করিয়া চলিয়া গেল। ঘরেও চুকিল না, কাহারও প্রতি চাহিয়াও দেখিল না । অনেকক্ষণ পৰ্য্যন্ত কমল তেমনিভাবেই তাহার হাতের উপর হাত বুলাইয়া দিতে লাগিল, কথাবার্তা কিছুই হইল না। যাবার পূর্বে আস্তে আস্তে বলিল, শুধু যন্থ ছাড়া এ-বাড়িতে পুরানো কেউ আর রইল না। যদু ? হঁ্য, আপনাদের পুরানো চাকর। কিন্তু সে তো নেই মা । তার ছেলের অসুখ, দিন-পাচেক হ’লো ছুটি নিয়ে পালিয়ে গেছে। আবার অনেকক্ষণ কোন কথা হইল না। আপ্তবাবু হঠাৎ জিজ্ঞাসা করিলেন, সেই রাজেন ছেলেটির কোন খবর জানো কমল ? না, কাকাবাবু। যাবার আগে তাকে একবার দেখবার ইচ্ছে হয়। তোমরা দুটিতে যেন ভাইবোন, যেন একই গাছের দুটি ফুল। এই বলিয়া তিনি চুপ করিতে গিয়া হঠাৎ যেন কথাটা মনে পড়িল, বলিলেন, তোমাদের যেন মহাদেবের দারিদ্র্য। টাকা-কড়ি, ঐশ্বৰ্য্য-সম্পদ অপরিমিতি, কোথায় যেন অন্যমনস্কে সে-সব ফেলে এসেচ। খুজে দেখবারও গরজ নেই, এমনি তাচ্ছিল্য। ૨૭છે