প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (নবম সম্ভার).djvu/৩৪৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


একাদশী বৈরাগী ঘোষাল ঝঙ্কার দিয়া কহিল, কে এতবেলায় ভূতের ব্যাগার খাটতে যাবে বাপু ? সাক্ষী নেই, রসিদ-পত্তর নেই— * কথাটা শেষ হইবার পূৰ্ব্বেই দ্বারের অন্তরাল হইতে জবাব আলি, রসিদ-পত্তর নেই বলে কি ব্রাহ্মণের টাকাটা ডুবে যাবে না কি ? পুরানে থাত দেখুন, আপনি না পারেন আমাকে দিন, দেখে দিচ্চি । সকলেই বিস্মিত হইয়া দ্বারের প্রতি চোখ তুলিল, কিন্তু যে হুকুম দিল তাহাকে দেখা গেল না । ঘোষাল নরম হইয়া কহিল, কত বছর হয়ে গেল মা ! এতদিনের খাতা খুজে বার করা ত সোজা নয় । খাতা-পত্তরের আণ্ডিল । তা জমা থাকে, পাওয়া যাবে বৈ কি। বিধবাকে উদ্দেশ করিয়া কহিল, তুমি বাছ কেঁদে না, হকের টাকা হয় ত পাবে বৈ কি। আচ্ছ, কাল এক বার আমার বাড়ি যেয়ে ; সব কথা জিজ্ঞেস করে থাত দেখে বার করে দেব । আজিPএতবেলায় ত আর হবে না । বিধবা তৎক্ষণাৎ সন্মত হইয়া কহিল, আচ্ছা বাবা, কাল সকালেই আপনার ওখানে যাব । যেয়ো, বলিয়া ঘোষাল ঘাড় নাড়িয়া সম্মুখের খোলা খাতা সেদিনের মত বন্ধ করিয়া ফেলিল । কিন্তু জিজ্ঞাসাবাদের ছলে বিধবাকে বাড়িতে আহবান করার অর্থ অত্যন্ত সুস্পষ্ট। অন্তরাল হইতে গৌরী কহিল, আট বছর আগের—তা হলে ১৩০১ সালের খাতটি একবার খুলে দেখুন ত, টাকা জমা আছে কি না ? ঘোষাল কহিলেন, এত তাড়াতাড়ি কিসের মা ! গৌরী কহিল, আমাকে দিন, আমি দেখে দিচ্চি। ব্রাহ্মণের মেয়ে দু'কোশ হেঁটে এলেচেন—দু’কেশি এই রৌদ্রে হেঁটে যাবেন, আবার কাল আপনার কাছে আসবেন ; এত হাঙ্গামায় কাজ কি ঘোষালকাক ? একাদশী কহিল, সত্যিই ত ঘোষালমশাই ; ব্রাহ্মণের মেয়েকে মিছামিছি হাটান কি ভাল ? বাপ রে ; দাও, দাও, চটুপটু দেখে দাও। ক্রুদ্ধ ঘোষাল রুষ্টকণ্ঠে উঠিয়া গিয়া পাশের ঘর হইতে ১৩০১ সালের খাত বাহির করিয়া আনিলেন। মিনিট-দশেক পাতা উণ্টাইয়া হঠাৎ ভয়ানক খুশী হইয়া বলিয়৷ উঠিলেন, বাঃ! আমার গৌরীমায়ের কি স্বক্ষ বুদ্ধি ! ঠিক এক সালের খাতাতেই জমা পাওয়া গেল। এই যে রামলোচন চাটুয্যের জমা পাঁচশ'— একাদশী কহিল, দাও, চটুপটু সুদটা কবে দাও ধোযালমশাই। ○○中