প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (নবম সম্ভার).djvu/৩৫৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


नांद्रौव्र भूला র্যাহারা ইতিহাস পড়িয়াছেন, তাহারা জানেন বিধবা-বিবাহ জগতের কোন দেশে কোনদিন সমাদর পায় নাই । কম-বেশী ইহাকে সকলেই অগ্রদ্ধার চোখে দেখিয়া * আসিয়াছে। এ অবস্থায় যেদেশে এ-প্রথা একেবারেই নিষিদ্ধ, সেদেশে পুড়াইয় মারা যে বিশেষ হিতকর অনুষ্ঠান বলিয়াই বিবেচিত হইবে, তাহা আশ্চৰ্য্য নয়। অবশ্য এ-কথা স্বীকার করিতে অনেকেরই লজ্জ হইবে, কিন্তু পতিহীন নারীর এখানে যখন আর তত আবশ্যক নাই, তখন কোনমতে ও-পারে রওনা করাইয়াদিতে পারিলে স্বামী মহাশয়ের কাজে লাগিবার সম্ভাবনা, এই ইচ্ছাই যে এ-প্রথার মূলে এ-কথা অস্বীকার করা এক গায়ের জোর ভিন্ন আর কিছুতেই পারা যায় না । তা ছাড়া দেখা যায়, যে-সমস্ত অসভ্য দেশে স্বামীর মৃত্যুর সহিত স্ত্রী বধ হইত, তাহাদের ঐ বিশ্বাস একান্ত দৃঢ়। তাহারা মনে করে, মৃতের আত্মা কাছাকাছি, ঝোপে-ঝাড়ে, গাছ-পালায় বসিয়া থাকে, সুতরাং সঙ্গিনীকে পাঠাইয়া দিলে উপকার হইবে। কিন্তু আমাদের সুসভ্য এই প্রাচীন দেশ, যেদেশে আত্মার স্বরূপ পৰ্য্যন্ত নির্ণীত হইয়া গিয়াছিল, ঈশ্বরের দীর্ঘ-প্রস্থ মাপিয়া শেষ করা হইয়াছিল, সেদেশের পণ্ডিতেরাও যে বিশ্বাস করিতেন, বধ করিয়া সঙ্গে পাঠান হয়, ইহাই আশ্চৰ্য্য ! তবে এ যদি নারী-পূজার একটা বিশেষ পদ্ধতি হইয়া থাকে ত সে আলাদা কথা । পুরুষ বুঝাইয়াছে সহমৃতা হওয়া সতীর পরম ধৰ্ম্ম । মন্থও বলিয়াছেন, এক পতি-স্বে ব্যতীত স্ত্রীলোকের আর কোন কাজ নাই। সে ইহকালে পুরুষের সেবা করিয়াছে, পরকালে গিয়াও করিবে। কিন্তু কখন করিবে, কতদিন পরে করিবে, এত ঝঞ্জাটে সে যাইতে চাহে নাই। তাহার বিলম্ব সহে না, তাই মরণ-সম্বন্ধে একটু সত্বর ও সতর্ক হওয়াই সে আবশ্যক মনে করিয়াছে। শাস্ত্র বলিয়াছেন, এক মাতৃত্বের কারণেই সে পূজাহ, সুতরাং সে সুযোগ না থাকিলে তাঁহাকে লইয়া আর কি হইবে ? তার পর ছোট-বড় কীৰ্ত্তি-স্তম্ভ উঠিয়াছে, গল্পের মধ্যে, দৃষ্টান্তের মধ্যে তখন সে স্ত্রীর দাম চড়িয়া গিয়াছে। পুরুষ যে কেবলমাত্র নিজের মুখ ও সুবিধা ব্যতীত—সেটা সত্যই হৌক আর কাল্পনিক হোঁক—আর কোনদিকে দৃষ্টিপাত করে নাই, সে-কথা চাপা দিয়া গৰ্ব্ব করিয়া প্রচার করিয়াছে, যেদেশে নারী হাসিতে হাসিতে চিতায় গিয়া বসিত, স্বামীর পাদপদ্ম ক্রোড়ে লইয়া প্রফুল্ল-মুখে নিজেকে ভস্মসাৎ করিত। ইত্যাদি ইত্যাদি— কিন্তু তাই যদি হয়, তবে স্বামীর মৃত্যুর পরই তাহার বিধবাকে একবাটি সিদ্ধি ও ধুতুরা পান করাইয়া মাতাল করিয়া দেওয়া হইত কেন ? শ্মশানের পথে কথন-ব সে হালিত, কখন কাদিত, কখন বা পথের মধ্যেই চুলিয়া ঘুমাইয়া পড়িতে চাহিত । . ©8ፃ

  • -88