প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (নবম সম্ভার).djvu/৩৮৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


नांद्रौन्न भूला সহরের মত স্থানেও ১৮৫০ অব্দ পর্য্যন্ত নারীর স্থান কোথায় ছিল, History of Women's Sufferage &cs উদ্ধত করিতেছি ; উক্ত গ্রন্থে নারী বিবাহ করিবার ള്ള পূৰ্ব্বে তাহার সমস্ত সম্পত্তি ভাবী স্বামীকে লিখিয়া দিবার পরেও ‘she was not a person’, ‘not recognised as a citizen’, ‘was little better then a domestic servant”. “By the English common law her husband was her lord and master,” “he could punish her with a stick,” “the common law of the state of Massachusets held man and wife to be one person, but that person was the husband," “she had no personal rights and could hardly call her soul her own". অথচ আমেরিকার নারীজাতির আশ্চৰ্য্য স্বাধীনতার কথা কতই না শোনা যায়। সেদেশেও এদেশের মত লাঠিবাজি ছিল এবং নালিশ করিয়াও প্রতিকার হইত না । এইখানে একটা প্রশ্ন মনে উঠে ; সংসারে মানবজাতির কোন অবস্থায় নারীর উপর প্রথম নিৰ্য্যাতন মুরু হইষাছিল ? মানুষ যখন পশুর মত ছিল,—তখন হইতে, না কতক মানুষের মত হইবার পর হইতে ? এ-সম্বন্ধে কোন সমাজতত্ত্ববিদই ঠিক কিছু বলিতে পারে না। পারিবার কথাও নয়। কারণ প্রত্যেক জাতির মধ্যেই, তিনি সুসভ্যই হেীন, আর অসভ্যই হেীন, নর-নারীর সম্বন্ধটা এতই জটিল, এতই রহস্তে ঢাকা যে, বাহিরের লোকের বাহির হইতে দেখিয়া কিছুতেই তাহ ঠিক করিয়া বলিবার যে নাই। লেটুর যখন প্রথম প্রচার করিয়াছিলেন, পৃথিবীর সমস্ত অসভেরাই নারীজাতিকে যৎপরোনাস্তি যন্ত্রণা দেয়, তখন তিনি নিজের বুদ্ধির উপর নির্ভর করিয়াই বলিয়াছিলেন, এবং তখন অনেকেই সে-কথা বিশ্বাস করিয়াছিলেন। কিন্তু সম্প্রতি অনেক পণ্ডিতই তাহাতে ধীরে ধীরে আস্থাশূন্ত হইয়া পড়িতেছেন। বস্তুত:, নর-নারীর সম্বন্ধটা কিছুতেই এমন হইতে পারে না যাহাতে extreme and unmitigated oppression, constantly subjected to unimaginable cruelty and violence by the savage NifD TEJ RfrR. fritti Ffrs ofta যায়। এমন হইলে সংসারে মানবজাতিই লোপ পাইত। এই সত্যটা সমস্ত আলোচনার মধ্যে মনে করিয়া না রাখিলেই ভুল হইবে । তবে তাহারও কথাটা ষে বারো-আনা সত্য, তাহাতে সন্দেহ নাই। অপরন্তু, Haddon সাহেব যে জোর করিয়া &f=f3 Head Hunters to footion, by no means down-trodden or ill-used, সে-কথাটাও নিতান্ত অশ্রদ্ধেয়। যদিও তাহার এই কথাটার অনুকূলে কয়েকটা অসভ্য জাতির মধ্যে দৃষ্টান্ত পাওয়া যায়, যথা, ভারতের খাসিয়া রমণীর ৩৭৩