প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (নবম সম্ভার).djvu/৪১৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অপ্রকাশিত রচনাবলী অনুষ্ঠিত হইত তাহারই একটু আভাস দেওয়া। ইহারই অভিনয়ে ক্লাস হেটুরেড’ জাগিতে পারে, রাজ-শক্তির ইহাই আশঙ্ক। আশঙ্কা অমূলক বা সমূলক এ আমার আলোচ্য নয়, কিংবা ইংরাজ নামের পরিবর্তে পর্তুগীজ নাম বসাইলে ক্লাস হেটুরেড' বঁাচে কি না সেও আমি জানি না,—ইংরাজের আইনে বাচিলেও বাচিতে পারে—কিন্তু ষে আইন ইহারও উপরে, যাহাতে ক্লাস’ বলিয়া কোন বস্তু নাই, তাহার নিরপেক্ষ বিচারে একের অপরাধ অপরের স্বন্ধে আরোপ করিলে যে বন্ধ মরে, তাহার দাম ক্লাস হেটুরেডে'রও অনেক বেশী। সেদিন দেখিলাম, এই ছোট 本 হইতে ছোট ছেলেরাও অব্যাহতি পায় নাই । তাহীদের সামান্ত পাঠ্য পুস্তকেও এই অসত্য স্থান লাভ করিয়াছে। নূতন গ্রন্থকার আমার মতামত জানিতে আসিয়াছিলেন। জিজ্ঞাসা করিলাম—এই আশ্চৰ্য্য নামটি আপনি সংগ্ৰহ করিলেন কিরূপে ? গ্রন্থকার সলজে কহিলেন—প্রাণের দায়ে করিতে হয়, মশায় । জানি সব, কিন্তু গরীব, পয়সা খরচ করিয়া বই ছাপাইয়াছি, তাই ওই ফন্দির্টুকু না করিলে কোন স্কুলে বই চলিবে না । তাহাকে আর কিছু বলিতে প্রবৃত্তি হইল না, কিন্তু মনে মনে নিজের কপালে করাঘাত করিয়া কহিলাম—যে-রাজ্যের শাসন-তন্ত্রে সত্য নিন্দিত, যেদেশের গ্রন্থকারকে জানিয়াও মিথ্যা লিখিতে হয়,—লিখিয়াও ভয়ে কণ্টকিত হইতে হয়, সেদেশে মামুষে গ্রন্থকার হইতে চায় কেন ? সেদেশের অসত্য-সাহিত্য রসাতলে ডুবিয়া যাক না । সত্যহীন দেশের সাহিত্যে তাই আজ শক্তি নাই, গতি নাই, প্রাণ নাই । তাই আজ সাহিত্যের নাম দিয়া দেশে কেবল ঝুড়ি ঝুড়ি আবর্জনার স্বষ্টি হইতেছে। তাই আজ দেশের রঙ্গমঞ্চ ভদ্র-পরিত্যক্ত, পঙ্গু, অকৰ্ম্মণ্য। সে না দেয় আনন্দ, না দেয় শিক্ষণ । দেশের রক্তের সঙ্গে তাহার যোগ নাই, প্রাণের সঙ্গে পরিচয় নাই, দেশের আশা-ভরসার সে কেহ নয়—সে যেন কোন অতীত যুগের মৃতদেহ। তাই পাচশত বছর পূৰ্ব্বে কবে কোন মোগল পাঠানকে জব্ব করিয়াছিল, এবং কখন কোন সুযোগে মারহাট্ট রাজপুতকে খোচ মারিয়াছিল, সে শুধু ইহারই সাক্ষী, এ-ছাড়া তাহার দেশের কাছে বলিবার আর কিছু নাই। দেশের নাট্যকারগণের বুকের মধ্য হইতে যদি কখন সত্য ধ্বনিয়া উঠিয়াছে, আইনের নামে, শৃঙ্খলার নামে, রাজসরকারে তাহ বাজেয়াপ্ত হইয়া গেছে ; তাই সত্যবঞ্চিত নাট্যশালা আজ দেশের কাছে এমনই লজ্জিত, ব্যর্থ ও অর্থহীন। ‘রুল ব্রিটানিয়া’ গাহিতে ইংরাজের বক্ষ স্ফীত হইয় উঠে, কিন্তু “আমার দেশ’ আমার দেশে নিষিদ্ধ। এই যে আজ আসমুদ্র-হিমাচল ব্যাপিধ ভাবের বন্যা, কৰ্ম্ম ও উস্তমের স্রোত বহিতেছে, নাট্যাগারে তাহার এতটুকু স্পন্দন 8●ዓ