প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (নবম সম্ভার).djvu/৬৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ আর একদিনের নিরানন্দের কাছে লজ্জাবোধ করে। এই বলিয়া সে ক্ষণকাল স্তব্ধ থাকিয়া কহিল, এ-জীবনে মুখ-দুঃখের কোনটাই সত্যি নয় অজিতবাবু, সত্যি চঞ্চল মুহূর্তগুলি, সত্যি শুধু তার চলে যাওয়ার ছন্দৰ্টুকু। বুদ্ধি এবং হৃদয় দিয়ে একে পাওয়াই ত সত্যিকারের পাওয়া । এই কি ঠিক নয় ? Ö এ প্রশ্নের উত্তর অজিত দিতে পারিল না, কিন্তু তাহার মনে হইল অন্ধকারেও অপরের দুই চক্ষু একাপ্ত আগ্রহে তাহার প্রতি চাহিয়া আছে। সে যেন নিশ্চিত কিছু একটা শুনিতে চায় ? কৈ জবাব দিলেন না ? আপনার কথাগুলো বেশ স্পষ্ট বুঝতে পারলাম না। পারলেন না ? त्र । একটা চাপা নিশ্বাস পড়িল। তাহার পরে কমল ধীরে ধীরে বলিল, তার মানে স্পষ্ট বোঝবার এখনো আপনার সময় আসেনি। যদি কখনো আসে আমাকে কিন্তু মনে করবেন। করবেন ত? অজিত কহিল, করব। গাড়ী আসিয়া সেই ভাঙা ফুল-বাগানের সম্মুখে থামিল। অজিত দ্বার খুলিয়া নিজে রাস্তায় আসিয়া দাড়াইল । বাটীর দিকে চাহিয়া কহিল, কোথাও একটু আলো নেই, সবাই বোধ হয় ঘুমিয়ে পড়েচে । কমল নামিতে নামিতে কহিল, বোধ হয় । অজিত কহিল, দেখুন ত আপনার অন্যায়। কাউকে জানিয়ে গেলেন না, শিবনাথবাবু না জানি কত দুর্ভাবনাই ভোগ করেচেন। কমল কহিল, ই । দুর্তাবনার ভারে ঘুমিয়ে পড়েচেন । অজিত জিজ্ঞাসা করিল, এই অন্ধকারে যাবেন কি করে ? গাড়ীতে একটা হাতলণ্ঠন আছে সেটা জেলে নিয়ে সঙ্গে যাবো ? কমল অত্যন্ত খুশি হইয়া কহিল, তা হলে ত বাচি অজিতবাবু। আমুন আমুন, আপনাকে একটুখানি চ খাইয়ে দিই। অঁজিত অনুনয়ের কণ্ঠে কহিল, আর যা হুকুম করুন পালন করব, কিন্তু এত রাত্রে চা খাবার আদেশ করবেন না। চলুন আপনাকে পৌঁছে দিয়ে আসচি। সদর দরজায় হাত দিতেই খুলিয়া গেল। ভিতরের বারানায় একজন হিন্দুস্থানী দাসী ঘুমাইতেছিল, মানুষের সাড়া পাইয়া উঠিয়া বসিল। বাড়িটি দ্বিতল। উপরে ○や