প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (পঞ্চম সম্ভার).djvu/১৭৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ ষোড়শী সেইখানে গড় হইয়া প্রণাম করিয়া জীবানন্দের পায়ের ধূলো মাথায় তুলিয়া লইয়া কহিল, আপনার কাছে আমার একান্ত অনুরোধ কি অনুরোধ অলকা ? ষোড়শী মুহূৰ্ত্তকাল নীরব থাকিয়া কহিল, সে আপনি জানেন। জীবানন্দ একটুখানি ভাবিয়া বলিল, হয়ত জানি, হয়ত ভেবে দেখলে জানতেও পারব—কিন্তু সেই যে একদিন বলেছিলে সাবধানে থাকতে—কি জানি, সে বোধ হয় আর পেরে উঠব না। আজই কিছুক্ষণ পূৰ্ব্বে এই মন্দিরের অন্ধকারে দাড়িয়ে কে দুজন দেবতার চৌকাঠ ছয়ে প্রাণ পৰ্য্যস্ত পণ করে শপথ করে গেল, তাদের মায়ের যে সৰ্ব্বনাশ করেচে তার সর্বনাশ না করে তারা বিশ্রাম করবে না –আড়ালে দাড়িয়ে নিজের কানেই ত সমস্ত শুনলাম—দু'দিন আগে হলে হয়ত মনে হতো সে বুঝি আমি—দুশ্চিন্তার সীমা থাকত না, কিন্তু আজ কিছু মনেই হ’লে না—কি অলকা ? না, কিছু নয়, বলিয়া যোড়শী জোর করিয়া আবার সোজা হইয়া দাড়াইল । অন্ধকারে জীবানন্দ দেখিতে পাইল না, সহসা তাহার মুখ ছাইয়ের মত সাদা হইয়৷ গেল। কহিল, চলুন, আমার ঘরে গিয়ে একটুখানি আজ বসতে হবে। আমাকে গাড়িতে তুলে না দিয়ে বাড়ি যেতে আপনাকে দেব না –আস্বন ২৫ গরুর গাড়ির নীচে চাদর মুড়ি দিয়া গাড়োয়ান শুইয়াছিল, সে ষোড়শীর পায়ের শব্দ অনুভবে বুঝিয়া কহিল, ম, শৈবাল দীঘি ত দশ-বারো কোশের পথ, একটু রাত থাকতে বার না হলে পৌছতে কাল প্রহর বেলা উৎরে যাবে। ষোড়শী বলিল, আচ্ছ, তাই হবে। কয়েক পদ অগ্রসর হইয়া আসিয়া কহিল, কোথায় যাচ্চি বোধ করি শুনতে পেলেন ? জীবানন্দ কহিল, পেলাম বই কি । ষোড়শী কহিল, বেশি দূর নয়। আপনার আক্রোশ এ পথটুকু অনায়াসে খুজে বার করতে পারবে । কিন্তু তোমার ওপর আক্রোশ ত আমার নেই। স্বর খুলিয়া ষোড়শী প্রবেশ করিল। কহিল, আমার একটি মাত্র কম্বল গাড়িতে পাতা। আপনাকে বলতে দিই এমন কিছু নেই। নিৰ্ম্মলবাবু হলে আঁচল বিছিয়ে দিতাম, কিন্তু আপনাকে ত তা মানাবে না। এই বলিয়া সে মুচকিয় একটু হাসিয়া } %e