প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (পঞ্চম সম্ভার).djvu/১৯৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য সংগ্ৰহ জীবানন্দ কহিল, এ-কথা আপনার সত্য, কিন্তু ভ্ৰম যতক্ষণ আছে ততক্ষণ রজ্জটাই ত আমার সত্য ! নিৰ্ম্মল বলিল, কিন্তু তাতে অব মরণ আটকাবে না। আরও একটা সত্য কথা আপনাকে বলে যাই । এইসব নোংরা কাজ করা আমার ব্যবসা নয় । আপনাকে আমি অতিশয় ঘৃণা করি, এবং এক পাপিষ্ঠের জন্য আব এক পাপিষ্ঠকে অনুরোধ করতে আমি লঙ্গল বোধ কবি ; কিন্তু সে আপনি বুঝবেন না—সে সাধ্যই আপনার নেই । জীবানন্দেব মুখের উপর কোন পবিবর্তন দেখা গেল না । লেশমাত্র উত্তেজনা নাট, তেমনি সোঁমা শান্তকণ্ঠে কহিল, কিন্তু আপনাকে আমি ঘৃণা করিনে নিৰ্ম্মলবাবু, শ্রদ্ধা করি, এ বোঝাবাব সাধ্যও ত আপনার নেই । তাহার নিৰ্ব্বিকাব স্বচ্ছন্দতাম নিৰ্ম্মল জলিতে লাগিল, এবং প্রত্যুত্তরকে কদৰ্য্য উপহাস কল্পনা কবিয়া তিক্ত-কণ্ঠে বলিল, চোর-ডাকাতদের মধ্যেও বিশ্বাস বলে একটা বস্তু আছে, নিজেদেব মধ্যে তারাও তা ভাঙে না । বিশ্বাসঘাতককে তারা ঘৃণা করে। কিন্তু জীবনব্যাপী দুরাচাবে বুদ্ধি যার বিকৃত, তার সঙ্গে কথা-কাটাকাটি করে লাভ নেই-আমি চললাম। এই বলিয়া সে চক্ষের পলকে পিছন ফিরিয়া দ্রুতপদে প্রস্থান করিল। জীবানন্দ চাহিয়া দেখিল অনেকেই হাতের কাজ বন্ধ করিয়া সবিস্ময়ে চাহিয়া আছে। সে স্নানমুখে শুধু একটু হাসিয়া বলিল, সময় যেটুকু নষ্ট কয়লি বাবার, সেটুকু কিন্তু পুষিয়ে দিস । কথাটা নিৰ্ম্মলের কানে গেল । দিন-চারেকের মধ্যেই কৃষককুলেব চিরদিনের দুঃখ দূর করিয়া জল-নিকাশের সঁকো তৈবি শেষ হইল, গ্রাম-গ্রামান্তর হইতে ভিড় করিয়া লোক দেখিতে আসিল, কিন্তু যে ইহা নির্মাণ করিল, সেই জীবানন্দ শয্যাগত হইয়া পড়িল । এ পরিশ্রম সে সহ করিতে পারিল না। এই অজুহাতে সাহেবের সহিত দেখা করিয়া নানা কৌশলে নিৰ্ম্মল তদন্তের দিন এক সপ্তাহ পিছাইয়া দিতে পারিয়াছিল, কিন্তু সেদিনও সমাগতপ্রায় । কেবল দুটো দিন বাকি। বঁচিবার একমাত্র পথ ছিল, এবং তাঁহাই অবলম্বন করিয়া জনাৰ্দ্দন তারাদাসকে দিয়া চণ্ডীমাতার বিশেষ পূজার ব্যবস্থা করাইলেন, এবং নিজে মন্দিরের একাস্তে বসিয়া সকাল-সন্ধ্যায় কায়মনে ডাকিতে লাগিলেন, মায়ের কৃপায় যেন এ-যাত্র জীবানন্দ আর না উঠে ৷ সাহেব সয়জমিনে আসার পূর্বেই যেন কিছু একটা হইয়া যায়। মেয়েকে লইয়া ষোড়শীর হাতে-পায়ে গিয়া পড়ার কথাও মনে হইয়াছিল, কারণ ছোটলোকদের যদি কেহ ঠেকাইতে পারে ত কেবল সে-ই পারে, কিন্তু কোথায় সে ? যে গাড়োয়ান তাহাকে লইয়া Soe