প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (পঞ্চম সম্ভার).djvu/৩৬২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ বুঝেছি। কিন্তু আপনি নিজে কি বলেন ? এখনও বলিনি কিছুই। জানি জলধির অনেক দোষ, তবুও জানি স্বদেশসেবায় জম-খরচের খাতায় তার খরচ বাদেও বাকি যেটা আছে সেও অনেক। তার মতো স্বর্থত্যাগ করেছে ক’জন ? কত লোকে তার মতো দুঃখ ভোগ করেছে ? তাকে বাদ দিলে সঙ্ঘ আমার টিকবে না। র্তাকে বাদ না দিয়েও সঙ্ঘ আপনার টিকবে না এককড়িদা । এককড়ি মুখ ফিরিয়ে রমেনের প্রতি খানিকক্ষণ চেয়ে থেকে বললে, তুমি কি করে জানলে রমেন ? জানিনে, শুধু আমার অল্পমান। জলধিবাবু যাই হোন, কিন্তু প্রতিষ্ঠানের কর্তা আপনি । কিন্তু, একটা কথা বলি এককড়িদা, পার-আঁচড়ানো আরশিতে মুখ দেখে ষে মুখের বিচার করে, সে স্থবিচার করে না। ভাবে, মুখের ঐ ক্ষতচিহ্নগুলোই সত্যি। আপনারও হয়েছে সেই দশা । সঙ্ঘের অশুভ কামনা করিনে, কিন্তু উল্লেখ যত মহৎ হোক, মনে হচ্ছে টিকবে না। কিন্তু মণি, তুমি বিষণ্ণ হয়ে উঠলে কেন, এ ত তোমাকে মানাচ্ছে না। মণি একটুখানি মান হেসে বললে, আমার প্ল্যানটা যে ফেঁসে গেল। এককড়ি উৎসুক হয়ে জিজ্ঞাসা করলে, কিসের প্ল্যান মণি ? মণি একবার দ্বিচুকরলে, হয়ত ভাবলে বলা উচিত কি-না, কিন্তু এককড়ি তেমg& আগ্রহে চেয়ে আছে দেখে আস্তে আস্তে বললে, একটু পূৰ্ব্বেই ভাবছিলাম আপনার কাছে হাজারখানেক টাকা ধার চেয়ে নেবো । - এককড়ি ক্ষণমাত্রও দ্বিধা না করে বললে, বেশ ত, তাই নিয়ো । রমেন জিজ্ঞাসা করলে, চাকুরি ত গেল, শোধ দেবে কি করে ? এককড়ি বললে, সে ও-ই জানে। আমি জানি ও যেখানেই থাকু, বেঁচে থাকলে শোধ দেবেই। আর মরে যদি যায় সে এতবড় ক্ষতি যে, হাজার টাকার শোক আমার মনেও পড়বে না। টাকাটা তোমাকে আমি কালই পাঠিয়ে দেবো । রমেন বললে, কিসের প্রয়োজন তা-ও জিজ্ঞাস করবেন না ? না। আমি জানি ও অপব্যয় করে না । কিন্তু এখন উঠি। সঙ্গোর তরফ থেে তোমাকে সাধুবাদ দেওয়া চলে না, কিন্তু আমার পক্ষ থেকে অসংখ্য ধন্যবাদ রইলো। যদি কখনও তোমার উপকারে আসতে পারি আম্ভরিক খুশী হবে?—এই বলে এককড়ি উঠে দাড়িয়ে বললে, রমেন, তোমায় সঙ্গে পরিচয় শুধু ঘণ্টাখানেকের, আর কখনও আলাপ করবার স্থযোগ হবে কি-না জানিনে, কিন্তু এটুকু জেনে গেলাম যে, আমার সম্বন্ধে ধারণা তোমার খুব খারাপ হয়েই রইলো। রমেশ হেসে বললে, তাতে আপনার ক্ষতি হবে মা দাদা । কিন্তু এ-কথাটা Wedo