পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/১০৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ তাহারই অদূরে শুকতারা দপদপ, করিয়া জলিতেছে। একটা চাপ কথাবার্তার কোলাহল কানে গেল। ঠাহর করিয়া দেখিলাম, দূরে শিমূল গাছের আড়ালে বাধের উপর দিয়া কাহারা যেন চলিয়া আসিতেছে, এবং তাহাদের দুই-চারিট লন্ঠনের আলোকও আশেপাশে ইতস্তত: দুলিতেছে। পুনৰ্ব্বার বাধের উপর উঠিয়া সেই আলোকেই দেখিলাম, দুইখানা গরুর গাড়ির অগ্রপশ্চাৎ জনকয়েক লোক এই দিকেই অগ্রসর হইতেছে। বুঝিলাম কাহারা এই পথে স্টেশনে যাইতেছে। মাথায় স্ববুদ্ধি আসিল ষে, পথ ছাড়িয়া আমার দূরে সরিয়া যাওয়া আবশ্বক। কারণ আগন্ধকের দল যত বুদ্ধিমান এবং সাহসীই হোক, হঠাৎ এই অন্ধকার রাত্রিতে এরূপ স্থানে আমাকে একাকী ভূতের মত দাড়াইয়া থাকিতে দেখিলে, আর-কিছু না করুক, একটা বিষম হৈ-হৈ-রৈ-রৈ চীৎকার তুলিয়া দিবে, তাহাতে আর সংশয় নাই। ফিরিয়া আসিয়া পূৰ্ব্বস্থানে দাড়াইলাম, এবং অনতিকাল পরেই ছই দেওয়া দুইখানি গো-শকট পাঁচ-ছয়জনের প্রহরায় সম্মুখে আসিয়া উপস্থিত হইল। একবার মনে হইল, ইহাদের অগ্রগামী লোক-ছটা আমার দিকে চাহিয়াই ক্ষণকালের জন্য স্থির হইয়া দাড়াইয়া অতি মৃদুকণ্ঠে কি যেন বলাবলি করিয়াই পুনরায় অগ্রসর হইয়া গেল ; এবং অনতিকাল মধ্যেই সমস্ত দলবল বঁাধের একটা বাকড়া গাছের অন্তরালে অদৃপ্ত হইয়া গেল। রাত্রি আর বেশি বাকী নাই অমুভব করিয়া ফিরিবার উপক্রম করিতেছি, এমনি সময়ে সেই বৃক্ষান্তরাল হইতে স্ব-উচ্চ কণ্ঠের ডাক কানে গেল, ঐকাস্তবাবু। সাড়া দিলাম, কে রে, রতন ? আঙ্কে, ই বাবু, আমি। একটু এগিয়ে আম্বন। দ্রুতপদে বাধের উপর উঠিয়া ডাকিলাম, রতন, তোরা কি বাড়ি যাচ্ছিস্ ? রতন উত্তর দিল, ই বাবু, বাড়ি যাচ্ছি—ম গাড়িতে আছেন। অদূরে উপস্থিত হইতেই, পিয়ারী পর্দার বাহিরে মুখ বাড়াইয়া কহিল, এ যে তুমি ছাড়া আর কেউ নয়, তা আমি দরোয়ানের কথা শুনেই বুঝতে পেরেচি। গাড়িতে উঠে এসো, কথা আছে। আমি সন্নিকটে আসিয়া জিজ্ঞাসা করিলাম, কি কথা ? উঠে এসো বলচি ! - না, তা পারব না, সময় নেই। ভোরের আগেই আমাকে তাবুতে পৌঁছুতে হবে। পিয়ারী হাত বাড়াইয়া থপ, করিয়া আমার ডান হাতটা চাপিয়া ধরিয়া তীব্র জিদের স্বরে বলিল, চাকর-বাকরের সামনে আর ঢলঢলি কোরো না—তোমার পায়ে পড়ি একবার উঠে এলো— > * *