পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/১২২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ বন্ধু আসিয়া বরফ বদলাইয়৷ দিল এবং ফিরিয়া গিয়া সেই খাটিয়ার উপর গুইয়া পড়িল । অনতিবিলম্বে তাহার যখন নাক ডাকিতে লাগিল, আমি আস্তে আস্তে ভাকিলাম, পিয়ারী ! পিয়ারী মুখের উপর ঝুঁকিয়া পড়িয়া, কপালের জলবিন্দুগুলা আঁচলে মুছাইয়া লইয়। বলিল, আমাকে কি চিনতে পারচ ? এখন কেমন আছ ? কা— ভাল আছি। কখন এলে ? এ কি আরা ? ই, আরা । কাল আমরা বাড়ি যাব । কোথায় ? পাটনায়। আমার বাড়ি ছাড়া আর কি কোথাও এখন তোমাকে ছেড়ে দিতে পারি ? এই ছেলেটি কে রাজলক্ষ্মী ? আমার সতীন-পো । কিন্তু বন্ধু আমার পেটের ছেলেই। আমার কাছে থেকেই ও পাটনা কলেজে পড়ে। আজ আর কথা কয়ে না, ঘুমোও, কাল সব কথা বলব। বলিয়া সে আমার মুখের উপর হাত চাপা দিয়া আমার মুখ বন্ধ করিয়া लि । আমি হাত বাড়াইয়া রাজলক্ষ্মীর ডান হাতখানি মুঠোর মধ্যে লইয়া পাশ ফিরিয়া শুইলাম । ১২ যাহাতে অচৈতন্য শয্যাগত হইয়া পড়িয়াছিলাম, তাহা বসন্ত নয়, অন্য জর । ডাক্তারি শাস্ত্রে নিশ্চয়ই তাহার একটা-কিছু গালভরা শক্ত নাম ছিল। কিন্তু আমি তাহা অবগত নই। খবর পাইয়া পিয়ারী তাহার ছেলেকে লইয়া জন-দুই ভৃত্য এবং দাসী লইয়া আসিয়া উপস্থিত হয়। সেই দিনই একটা বাসা ভাড়া করিয়া আমাকে স্থানান্তরিত করে এবং শহরের ভালমন্দ নানাবিধ চিকিৎসক জড় করিয়া ফেলে। ভালই করিয়াছিল। ন হইলে অন্য ক্ষতি না হোক, ভারতবর্ষের পাঠক-পাঠিকার ধৈর্ঘ্যের মহিমাট সংসারে অবিদিত থাকিয়া যাইত। ভোরবেলা পিয়ারী কহিল, বন্ধু, আর দেরি করিসূনে বাবা, এইবেল একখানা সেকেণ্ড ক্লাস গাড়ি রিজার্ভ ক’রে আয়। আমি একদণ্ডও এখানে রাখতে সাহস করি নে। বন্ধুর অতৃপ্ত নিদ্রা তখনও দুচক্ষু জড়াইয়া ছিল, সে মুশ্ৰিত নেত্রে অব্যক্ত স্বরে জবাব লি, তুমি ক্ষেপেচ মা, এ অবস্থায় কি নাড়ানাড়ি করা যায় । $ $sto