পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/১৭৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ কোথায় ? এই দেখ, মাধবী দেবী—যার বাড়ি নীলাম হয়েচে । এক মূহূর্তে শান্তি অনেক কথা বুঝিল। কহিল, তাই বুঝি সমস্ত ফিরিয়ে দিতে क्लोहेछ ? স্বরেক্ত ঈষৎ হাসিয়৷ উত্তর দিল, তাই হ’লে নিশ্চয় ফিরিয়ে দেব-সমস্ত --अंद ॥ মাধবীর কথায় শাস্তি একটু দুঃখিত হইয়া পড়িল ; ভিতরে বোধ হয় একটু হিংসার ভাৰ ছিল। কহিল, তিনি হয়ত তোমার বড়দিদি নন। শুধু মাধবী নাম আছে । নামেতেই এই ৷ বড়দিদির নামের একটু সন্মান করব না ? তা কর, কিন্তু তিনি নিজে কিছু জানতে পারবেন না। তা পারবেন না—কিন্তু আমি কি অসম্মান করতে পারি ? নাম ত এমন কত লোকের আছে । আছে । তুমি দুর্গ নাম লিখে তাতে পা দিতে পার ? ছি। ও-কি কথা ? ঠাকুর-দেবতার নাম নিয়ে— স্বরেন্দ্রনাথ হাসিয়া উঠিল, আচ্ছ, ঠাকুর-দেবতার নাম নাই নিলাম, কিন্তু তোমাকে আমি পাচ হাজার টাকা দিতে পারি, যদি একটি কাজ করতে পার। শান্তি উৎফুল্প হইয়া কহিল, কি কাজ ? দেয়ালের গায়ে স্বরেন্দ্রনাথের একটি ছবি ছিল, সেই দিকে দেখাইয়া দিয়া বলিল, ७हे छदिग्नेि शक्-ि কি ? চারিজন ব্রাহ্মণ দিয়ে নদীর উীরে পোড়াতে পার । অদূরে বজ্ৰাঘাত হইলে লোকের যেমন প্রথমে সমস্ত রক্ত নিমেষে সরিয়া যায়, মুখখানা সৰ্পদষ্ট রোগীর মত নীলবর্ণ হইয়া থাকে, শান্তির প্রথমে সেক্টরূপ অবস্থা হইল । তাহার পর ধীরে ধীরে মুখে-চোখে রক্ত ফিরিয়া আসিল—তাহার পর করুণ দৃষ্টিতে স্বামীর মুখপানে চাহিয়া সে নি:শবে নীচে নামিয়া গেল। পুরোহিত ডাকাইয়া রীতিমত শাস্তিস্বস্ত্যয়নের ব্যবস্থা করিয়া রাজার অৰ্দ্ধেক রাজত্ব মানত করিয়া মনে মনে প্রতিজ্ঞা করিল যে, এই বড়দিদি যিনিই হউন, ইহার সম্বন্ধে সে জার কোন কথা কহিবে না। তাহার পরে ঘরে দ্বার দিয়া বহুক্ষণ বরিয়া গে অঙ্গমোচন করিল। এ জীবনে এমন কটু কথা সে আর কখনও শোনে নাই । ११३