পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/৩৪৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চজনাথ কিছুদিন তিনি চন্দ্রনাথের সম্মুখে বাহির হইলেন না। আহাৰ্য্য-সামগ্ৰী ধরিয়া দিয়া সরিয়া যাইতেন। কিন্তু ক্রমশ: বাহির হইতে লাগিলেন । একে ত চন্দ্রনাথ । বয়সে ছোট, তাহাতে এক স্থানে অধিক দিম ধরিয়া থাকিলে একটা আত্মীয়-ভাব আলিয়া পড়ে । , তখন তিনি চন্দ্রনাথকে খাওয়াইতে বসিতেন—জননীর মত কাছে বসিয়া যত্বপূর্বক আহার করাইতেন। আপনার জননীর কথা চন্দ্রনাথের স্মরণ হয় নী—চিরদিন মাতৃহীন চন্দ্রনাথ পিতার নিকট লালিত-পালিত হইয়াছিল। পিতা সে স্থান কতক পূর্ণ রাখিয়াছিলেন সত্য, কিন্তু এরূপ কোমল স্নেহ তথায় ছিল না । - পিতার মৃত্যুতে চন্দ্রনাথের বুকের যে অংশটা খালি পড়িয়াছিল, শুধু যে তাহাই পূর্ণ হইয়া আসিতে লাগিল তাহী নহে, অভিনব মাতৃস্নেহ-রসে তাহাকে অভিভূত করিয়া ফেলিতে লাগিল । - একদিন চন্দ্রনাথ হরিদয়ালকে জিজ্ঞাসা করিল, আপনার নিজের বলিতে কেহ ত নাই বলিয়াই জানি, কিন্তু ইনি কে ? হরিদয়াল কহিলেন, ইনি বামুন-ঠাকুরুণ ! কোন আত্মীয় ? না ? তবে এদের কোথায় পেলেন ? হরিদয়াল কহিলেন, সে অনেক কথা। তবে সংক্ষেপে বলতে হ’লে, ইনি প্রায় তিন বৎসর হ’ল স্বামী এবং ওই মেয়েটিকে নিয়ে তীর্থ করতে আসেন। কাশীতে স্বামীর মৃত্যু হয়। দেশে এমন কোন আত্মীয় নেই যে, ফিরে যান। তার পর ত দেখছ । আপনি পেলেন কিরূপে ? মণিকর্ণিকার ঘাটের কাছে মেয়েটি ভিক্ষা করছিল । চন্দ্রনাথ একটু চিন্তা করিয়া কহিল, কোথায় বাড়ি জানেন কি ? ঠিক জানি না। নবদ্বীপের নিকট কোন একটা গ্রামে । «ogy