প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/৩৬৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চন্দ্রনাথ দয়াল একটুখানি সরিয়া বসিয়া বলিলেন, তোমাকে দেখে তো চামার ব'লে মনে হয়েছিল। যা হোক, নমস্কার । সে ব্যাক্তি রাগ করিল না । বলিল, নমস্কার । আপনার অনুমান মিথ্যা নয়, আমাকে চামার বলাও চলে, মুসলমান খ্ৰীষ্টান বলাও চলে। আমি জাত মানিনে— আমি পরমহংস । g তুমি অতি পাষণ্ড । সে বলিল, সে কথা আমাকে স্মরণ করিয়ে দেবার প্রয়োজন দেখচি না, কেননা, ইতিপূৰ্ব্বে অনেকেই অনুগ্রহ ক'রে ও কথা বলেছেন। কি ছিলাম, কি হয়েচি, তা এখনো বুঝি । কিন্তু আমিই রাখালদাস। দয়ালের মুখখানি অপরিসীম ক্রোধে রক্তবর্ণ হইয়া উঠিল, কোনমতে মনের ভাব দমন করিয়া তিনি বলিলেন, এখন কি করতে চাও ? মুলোচনাকে নিয়ে যাবে ? আঞ্জে না। তাতে আপনার খাওয়া-দাওয়ার কষ্ট হবে, আমি অত নরাধম নই। প্রাণের দায়ে দয়াল এ পরিহাসটাও পরিপাক করিলেন । তারপর বলিলেন, তবে কি চাও ? আবার এসেচ কেন ? টাকা চাই। দারুণ অর্থাভাব, তাই আপাততঃ এসেছি । হাজার-দুই পেলেই 衍 লে যাব, জানাতে এসেছি।

  • টাকা তোমাকে কে দেবে ? ষার গরজ। আপনি দেবেন—ম্বলোচনার জামাই দেবে—সে বড় লোক। দয়াল তাহার স্পৰ্দ্ধা দেখিরা মনে মনে স্তম্ভিত হইয়া গেলেন । কিন্তু সে অতিশয় ধূৰ্ত্ত এবং কৌশলী, তাহাও বুঝিলেন। বলিলেন, বাপু, আমি দরিদ্র, অত টাকা কখনও চোখে দেখিনি । তবে স্বলোচনার জামাই দিতে পারে, সে কথা ঠিক। কিন্তু সে দেবে না । তাকে চেন না, ভয় দেখিয়ে । তার কাছ থেকে ছ’হাজার ত ঢের দূরের কথা—দুটো পয়সাও আদায় করতে পারবে না। তুমি যে বুদ্ধিমান লোক, তা টের পেয়েচি, কিন্তু সে আরও বুদ্ধিমান। বরং আর কোন ফন্দি দেখ-এ খাটবে না।

রাখাষ্ট্ৰলর মুখের দিকে কিছুক্ষণ স্থিরভাবে চাহিয়া থাকিয়া মৃদু হাসিল। বলিল, সে ভাবন আমার। দেখা যাক, যত্নে কৃতে যদি– দয়াল তাঙ্কাজাকি ৰাধা দিয়া বলিলেন, থাক বাবা, দেবভাষাটাকে আর অপবিত্র কোরো ম{ t রাখাল সপ্রতিভভাবে বলিল, ষে আজ্ঞে । কিন্তু আর ত বসতে পাচ্চিনে—বলি তার ঠিকানাটা কি ?