পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/৩৮৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ আমাদের সঙ্গে তবে আহার-ব্যবহার বন্ধ হ'ল । কৈলাসচন্দ্ৰ এবার ফিরিয়া দাড়াইলেন। বললেন, কবে কার বাড়িতে, দয়াল, কৈলাসখুড়ো পাত পেতেছে ? ত না পাত ; কিন্তু সাবধান ক’রে দিচ্চি । কৈলাস ভ্র-কুঞ্চিত করিলেন। তাহার সুদীর্ঘ কাশীবাসের মধ্যে আজ র্তাহার এই প্রথম ক্রোধ দেখা দিল । বলিলেন, হরিদয়াল, আমি কাশীর পাগু, না যজমানের মন জুগিয়ে অল্পের সংস্থান করি ? আমাকে ভয় দেখাচ্চ কেন ? আমি যা ভাল বুঝি, তাই চিরদিন করেচি, আজও তাই করব। সে জন্য তোমার দুর্ভাবনার আবশ্বক নেই। হরিদম্বাল শুষ্ক হইয়া কহিলেন, তোমারই ভালর জন্য— থাকু বাবাজী ! যদি এই পয়ষট্রি বছর তোমার পরামর্শ না নিয়েই কাটাতে পেরে থাকি, তখন বাকী দু’চার বছর পরামর্শ না নিলেও আমার কেটে যাবে। যাও বাবাজী, ঘরে যাও । হরিদয়াল পিছাইয়া পড়িলেন । কৈলাসচন্দ্র বাটতে পৌঁছিয়া বাক্স নামাইয়া সহজভাবে বলিলেন, এ ঘরবাড়ি সব তোমার মা, আমি তোমার ছেলে। বুড়োকে একটু-আধটু দেখো আর তোমার নিজের ঘরকল্প চালিয়ে নিয়ো, আর কি বলব ? কৈলাসের আর কোন কথা কহিবার ছিল কি না, বলিতে পারি না, কিন্তু সরযু বহুক্ষণ অবধি অশ্র মুছিতে মুছিতে ভাবিয়া দেখিল, তাহার কোন কথাই আর বলিবার নাই। সরযু আশ্রয় পাইল । ত্রয়োদশ পরিচ্ছেদ শরৎকালের প্রাতঃসমীরণ যখন স্নিগ্ধ-মধুর সঞ্চরণে চন্দ্রনাথের কক্ষে প্রবেশ করিত, সারা রাত্রির দীর্ঘ জাগরণের পর চন্দ্রনাথ এই সময়টিতে ঘুমাইয়া পড়িত। তাহার পর তপ্ত স্বৰ্য্য-রশ্মি জানালা দিয়া তাহার মুখের উপর, চোখের উপর পড়িত, চন্দ্রনাথের আবার ঘুম ভাঙ্গিয়া যাইত। কিন্তু ঘুমের ঘোর কিছুতেই কাটিতে চাহিত না, পাতায় পাতায় জড়াইয়া থাকিত, তথাপি সে জোর করিয়া বিছান। ছাড়িা বাহিরে আসিয়া পড়িত। সারানি কাজকৰ্ম্ম নাই, আমো নাই శ్రీూసి